উল্লেখ্য, বুধবার পার্বত্য ভূমি বিরোধ কমিশনের বৈঠক রয়েছে। বেলা ১১টায় রাঙামাটি জেলা পরিষদের ভূমি বিরোধ নিষ্পত্তি কমিশনের কার্যালয়ে এই সভা হওয়ার কথা। এতে সভাপতিত্ব করবেন কমিশনের চেয়ারম্যান মো. আনোয়ার উল হক।

পার্বত্য চট্টগ্রাম নাগরিক পরিষদের কেন্দ্রীয় কমিটির সভাপতি মো. মুজিবুর রহমান সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন। তিনি সংগঠনের সাত দফা দাবি তুলে ধরেন। এর মধ্যে রয়েছে—পার্বত্য ভূমি বিরোধ নিষ্পত্তি কমিশনে জনসংখ্যা অনুপাতে সব জাতিগোষ্ঠীর সমানসংখ্যক সদস্য নিশ্চিত করা; ভূমি বিরোধ নিষ্পত্তি কমিশনের কার্যক্রম শুরুর আগে ভূমির বর্তমান অবস্থা নিশ্চিত করার লক্ষ্যে জরিপ শেষ করা; জাতি, ধর্মনির্বিশেষে সব সম্প্রদায়ের মানুষের ভূমির ওপর ন্যায্যতা প্রতিষ্ঠার লক্ষ্যে দেশের সংবিধানের সঙ্গে সাংর্ঘষিক ভূমি কমিশন সংশোধনী আইন ২০১৬ ধারাগুলো বাতিল করা; পার্বত্য চট্টগ্রামে ভূমি ব্যবস্থাপনা দেশের প্রচলিত আইন অনুযায়ী প্রবর্তন করা ও সমতলের মতো জেলা প্রশাসকদের ভূমি বিরোধ নিষ্পত্তির দায়িত্ব দেওয়া; কমিশন কর্তৃক ভূমি বিরোধ নিষ্পত্তির কারণে কোনো ব্যক্তি ক্ষতিগ্রস্ত হলে তাঁকে পার্বত্য চট্টগ্রামে সরকারি খাস জমিতে পুনর্বাসনের ব্যবস্থা করা; পার্বত্য চট্টগ্রামে রীতি, প্রথা ও পদ্ধতির পরিবর্তে দেশে বিদ্যমান ভূমি আইন অনুসারে ভূমি ব্যবস্থাপনা কার্যক্রম পরিচালনা করা এবং বাংলাদেশ সরকারের আদেশ অনুযায়ী জেলা প্রশাসন কর্তৃক বন্দোবস্ত করা অথবা কবুলিয়াত মালিকানা থেকে কাউকে উচ্ছেদ করা যাবে না।

সংবাদ সম্মেলনে অন্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন পার্বত্য নাগরিক পরিষদের কেন্দ্রীয় কমিটির মহাসচিব মো. আলমগীর কবির, সাংগঠনিক সম্পাদক মো. আনিসুজ্জামান ডালিম, পার্বত্য নাগরিক পরিষদের রাঙামাটি জেলা কমিটির সভাপতি মো. নাদিরুদ জামান, সাধারণ সম্পাদক মোহাম্মদ সোলায়মান, সাংগঠনিক সম্পাদক মো. আবু বকর, পার্বত্য নাগরিক পরিষদের মহিলাবিষয়ক সম্পাদক লাভলী আক্তার।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন