বিশ্ববিদ্যালয়ের ওয়েবসাইটে ভর্তিসংক্রান্ত বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, ২৩ জানুয়ারি থেকে স্নাতক প্রথম বর্ষে চূড়ান্ত ভর্তি কার্যক্রম শুরু হবে। বিশ্ববিদ্যালয়ের একাডেমিক কাউন্সিলের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী চূড়ান্ত ভর্তিতে শিক্ষার্থীদের প্রাথমিক নিশ্চয়নে ৫ হাজার এবং পরে ১০ হাজার টাকাসহ মোট ১৫ হাজার টাকার ভর্তি ফি প্রদান করতে হবে।

বিশ্ববিদ্যালয়ের একাডেমিক ভবন ‘এ’–এর ১২১ নম্বর কক্ষে এ ভর্তিপ্রক্রিয়া অনুষ্ঠিত হবে। এদিকে গত বছরের তুলনায় ভর্তি ফি প্রায় দ্বিগুণ বৃদ্ধির প্রতিবাদে সাধারণ শিক্ষার্থীরা বিক্ষোভ মিছিল করেছেন। মিছিলে শিক্ষার্থীরা ভর্তি ফি বাড়ানোকে ‘অমানবিক ও স্বৈরতান্ত্রিক’ উল্লেখ করে দ্রুত এই ফি কমানোর দাবি জানিয়েছেন।

বক্তারা বলেন, বর্তমান দ্রব্যমূল্য ঊর্ধ্বগতির বাজারে ছাত্রদের নাজেহাল অবস্থা। যখন অর্থ বরাদ্দ বাড়ানো উচিত, সেখানে প্রশাসন ভর্তি ফি বৃদ্ধি করে শিক্ষার্জন কঠিন করে তুলেছে। শিক্ষা হচ্ছে মানুষের মৌলিক অধিকার। অভ্যন্তরীণ আয় বৃদ্ধির নামে দফায় দফায় বেতন ফি বৃদ্ধি করার মাধ্যমে শিক্ষার দ্বারকে সংকুচিত করা হচ্ছে। মানুষের মৌলিক অধিকারকে খর্ব করা হচ্ছে। অবিলম্বে বর্ধিত ফি বৃদ্ধি প্রত্যাহার করে নতুন বর্ষের শিক্ষা কার্যক্রম শুরুর দাবি জানান তাঁরা।

সমাবেশে সমাজবিজ্ঞান বিভাগের শিক্ষার্থী তানভীর রহমানের সঞ্চালনায় বক্তব্য দেন বাংলা বিভাগের শিক্ষার্থী ওসমান গণি, গণিত বিভাগের সজীব আহমেদ, পদার্থবিজ্ঞান বিভাগের সজীব আহমেদ প্রমুখ।

শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের ভর্তি কমিটির সভাপতি মো. রাশেদ তালুকদার প্রথম আলোকে বলেন, বিশ্ববিদ্যালয়ের একাডেমিক কাউন্সিলের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী দেশের অন্যান্য বিশ্ববিদ্যালয়ের সঙ্গে সমন্বয় রেখে ভর্তি ফি বৃদ্ধি করা হয়েছে। তিনি বলেন, আগামী ২৩, ২৪ ও ২৫ জানুয়ারি ভর্তি কার্যক্রম চলবে।