দলীয় সূত্র জানায়, খাদেরগাঁও ইউনিয়ন যুবলীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক নেছার পাটোয়ারী ও সহসভাপতি মোজাম্মেল হক মিয়াজীসহ মাত্র তিন নেতা আওয়ামী লীগের চেয়ারম্যান প্রার্থীর পক্ষে কাজ করছেন। অন্যদিকে বিদ্রোহী ইকবাল হোসেন হাওলাদারের পক্ষে ইউনিয়ন যুবলীগের সভাপতি কাউসার প্রধান, সাবেক আহ্বায়ক জসিম উদ্দিনসহ দলটির অধিকাংশ নেতা-কর্মী কাজ করছেন। এ ছাড়া উপজেলা যুবলীগের অন্তত চার যুগ্ম আহ্বায়ক ওই বিদ্রোহী প্রার্থীর পক্ষে প্রত্যক্ষ বা পরোক্ষভাবে অবস্থান নিয়েছেন।

সূত্রটি আরও জানায়, উপজেলা আওয়ামী লীগের বড় একটি অংশও দলটির বিদ্রোহী প্রার্থীর পক্ষে কাজ করছেন। এতে অনেকটা কোণঠাসা হয়ে পড়েছেন আওয়ামী লীগের চেয়ারম্যান প্রার্থী। ওই ইউনিয়নে যুবলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক আরিফ হোসেন বলেন, বিদ্রোহী চেয়ারম্যান প্রার্থীর পক্ষে প্রকাশ্যে ও গোপনে তাঁর দলের অনেকে কাজ করছেন। এতে তাঁর দলের প্রার্থী বেকায়দায় পড়েছেন। এ নিয়ে তাঁর দল ও দলের প্রার্থী অস্বস্তিতে রয়েছেন।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে আওয়ামী লীগের প্রার্থী সৈয়দ মঞ্জুর হোসেন অভিযোগ করেন, স্থানীয় যুবলীগ ও ছাত্রলীগের অনেকেই তাঁর বিরোধিতা করে বিদ্রোহী প্রার্থীর পক্ষে অর্থনৈতিক ও অন্যান্য সুবিধা নিয়ে প্রচারণা চালাচ্ছেন। এ ঘটনায় বিদ্রোহী প্রার্থীকেও এখন পর্যন্ত বহিষ্কার করা হয়নি। এতে বড় ধরনের অস্বস্তিতে রয়েছেন। বিষয়টি তিনি দলের উচ্চপর্যায়ের নেতাদের জানিয়েছেন।

দলটির বিদ্রোহী প্রার্থী ইকবাল হোসেন হাওলাদার বলেন, এলাকার লোকজন ও দলের নেতা-কর্মীরা তাঁকে সমর্থন দিচ্ছেন। কাউকে অর্থনৈতিক বা অন্যান্য সুবিধা দেওয়ার অভিযোগ ভিত্তিহীন। এ ব্যাপারে উপজেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক মোফাজ্জল হোসেন বলেন, দলীয় প্রার্থীর বিরুদ্ধে যাঁরা কাজ করছেন, তাঁদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে কেন্দ্রীয় নেতাদের কাছে চিঠি পাঠিয়েছেন।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন