শিক্ষার্থী ও এলাকাবাসী সূত্রে জানা যায়, পুরিন্দা কে এম ছাদেকুর রহমান উচ্চবিদ্যালয়ের কয়েকজন শিক্ষার্থী ইজিবাইকে করে বিদ্যালয়ে যাচ্ছিল। এ সময় পুরিন্দার ঢাকা-সিলেট মহাসড়কে টহলরত নরসিংদীর ইটাখোলা হাইওয়ে পুলিশ ফাঁড়ির একটি মাইক্রোবাস ইজিবাইকটিকে পেছন থেকে ধাক্কা দেয়। এতে ইজিবাইকটি উল্টে যায়। এ সময় পুলিশ আহত শিক্ষার্থীদের উদ্ধার না করে ইজিবাইকচালকে মারধর করলে শিক্ষার্থী ও এলাকাবাসী পুলিশের ওপর চড়াও হন। পরে ওই বিদ্যালয়ের শিক্ষর্থীরা গিয়ে এলাকাবাসীর সঙ্গে মিলে রাস্তায় থাকা হাইওয়ে পুলিশের মাইক্রোবাসটিতে আগুন ধরিয়ে দেয়। এ সময় অন্তত এক ঘণ্টা মহাসড়কে যান চলাচল বন্ধ থাকে। পরে আড়াইহাজার থানা–পুলিশের সদস্যরা ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থতি নিয়ন্ত্রণে আনেন।

নারায়ণগঞ্জের জ্যেষ্ঠ সহকারী পুলিশ সুপার (গ-সার্কেল) আবির হোসেন বলেন, ‘আমরা প্রাথমিকভাবে জানতে পেরেছি, একটি অটোরিকশায় কয়েকজন শিক্ষার্থী যাচ্ছিল। ওই সময় টহলে থাকা হাইওয়ে পুলিশের একটি রিকুইজিশন করা মাইক্রোবাসের সঙ্গে অটোরিকশার ধাক্কা লাগলে শিক্ষার্থীরা আহত হয়। তখন এলাকাবাসী হাইওয়ে পুলিশের সেই গাড়িতে আগুন ধরিয়ে দেয়। পরে অতিরিক্ত পুলিশ গিয়ে পরিস্থিতি শান্ত করে।’

তবে হাইওয়ে পুলিশের পুলিশ সুপার আলী আহাম্মদ দাবি করেন, ওই অটোরিকশায় চারজন ছাত্রী ও একজন ছাত্র ছিল। ইজিবাইকটি নিজে নিজেই উল্টে গিয়ে একজন ছাত্র আহত হয়। খবর পেয়ে হাইওয়ে পুলিশের একটি টহল দল ইজিবাইকটিকে উদ্ধার করতে গেলে স্থানীয় লোকজন ভুল বুঝে মাইক্রোবাসটি পুড়িয়ে দেন।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন