রায়দুম বাগড়া গ্রামের চারজন বাসিন্দা ও পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, ওই গ্রামের রুমালি মিয়া বার্ধক্যজনিত সমস্যায় ২০১৮ সালের ডিসেম্বর মাসে মারা যান। তাঁর মৃত্যুর পর নমিনি হিসেবে বড় মেয়ে রহিমা খাতুন ওই টাকা উত্তোলন করতেন। ওই টাকা রহিমার স্বামী আবুল হাসেম খরচ করতেন। এ নিয়ে দীর্ঘদিন ধরে সালামের সঙ্গে হাসেমের বিরোধ চলছিল।

নিহত সালামের বোন রহিমা বলেন, গতকাল রাত পৌনে আটটার দিকে সালাম কাজ শেষে বাড়ি ফিরছিলেন। এ সময় হাসেম দা দিয়ে বাঁশ–বেতের কাজ করছিলেন। পথে সালামের সঙ্গে হাসেমের দেখা হলে বয়স্ক ভাতার টাকা নিয়ে দুজনের মধ্যে আবার বাগ্‌বিতণ্ডা হয়। একপর্যায়ে হাসেম ক্ষিপ্ত হয়ে তাঁর শ্যালক সালামকে দা দিয়ে কোপ দেন। এতে ঘটনাস্থলে সালাম মারা যান।

এ ঘটনার পর থেকে হাসেম গা ঢাকা দিয়েছেন। তাই অভিযোগের বিষয়ে তাঁর বক্তব্য পাওয়া যায়নি।
নেত্রকোনা মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা খন্দকার শাকের আহমেদ বলেন, সালামের লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য নেত্রকোনা আধুনিক সদর হাসপাতালের মর্গে রাখা হয়েছে। এ ঘটনায় মামলার প্রস্তুতি চলছে। অভিযুক্ত হাসেমকে ধরতে পুলিশের অভিযান চলছে।