মহানগর আওয়ামী লীগ ও ছাত্রলীগ সূত্রে জানা গেছে, বিক্ষোভে অংশ নেওয়া নেতা-কর্মীরা বরিশাল সদর আসনের সংসদ সদস্য ও পানিসম্পদ প্রতিমন্ত্রী জাহিদ ফারুকের অনুসারী। জাহিদ ফারুক বরিশাল জেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি। অপর দিকে আহ্বায়ক কমিটিতে স্থান পাওয়া সবাই বরিশাল সিটি করপোরেশনের মেয়র ও নগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সেরনিয়াবাত সাদিক আবদুল্লাহর অনুসারী।

মহানগর ছাত্রলীগের ৩২ সদস্যের আহ্বায়ক কমিটির অনুমোদনের কথা জানিয়ে শনিবার রাতে সংগঠনের কেন্দ্রীয় সভাপতি আল নাহিয়ান খান তাঁর ফেসবুক পেজে তালিকা প্রকাশ করেন। সংগঠনের প্যাডে তিন মাসের জন্য করা ওই অন্তর্বর্তীকালীন কমিটির অনুমোদন দিয়ে সই করেছেন সভাপতি আল নাহিয়ান খান ও সাধারণ সম্পাদক লেখক ভট্টাচার্য। কমিটিতে রইজ আহমেদ ওরফে মান্নাকে আহ্বায়ক এবং মো. মাইনুল ইসলাম ও আরিফুর রহমানকে যুগ্ম আহ্বায়ক করা হয়।

ঘোষিত কমিটি প্রত্যাখ্যান করে তা বাতিলের দাবিতে গত সোমবার নগরে বিক্ষোভ হয়। বিক্ষোভে অংশ নেওয়া পদবঞ্চিত নেতা-কর্মীরা সদ্য ঘোষিত আহ্বায়ক কমিটির নেতৃত্ব পাওয়া ছাত্রলীগের বিবাহিত নেতা ও তাঁদের স্ত্রী-সন্তানদের ছবিসংবলিত পোস্টার ও প্ল্যাকার্ড বহন করেন। ওই বিক্ষোভের অংশ হিসেবে আজ মানববন্ধন ও সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়। নগরের বঙ্গবন্ধু উদ্যানে বেলা আড়াইটার দিকে এ কর্মসূচি হয়।

default-image

সমাবেশে বক্তারা বলেন, ওই আহ্বায়ক কমিটির অধিকাংশের ছাত্রত্ব নেই। আহ্বায়ক রইজ আহমেদ বিবাহিত এবং তাঁর সন্তান রয়েছে। দুই যুগ্ম আহ্বায়ক আরিফুর রহমান ওরফে শাকিল ও মাইনুল ইসলামও বিবাহিত। এ ধরনের কমিটির ঘোষণা দিয়ে কেন্দ্রীয় কমিটির ভূমিকা এখন প্রশ্নবিদ্ধ।

নতুন কমিটির আহ্বায়ক বরিশাল বাস মালিক সমিতির সদস্য এবং পরিবহন মালিক-শ্রমিক ফেডারেশনের নেতা উল্লেখ করে বক্তারা বলেন, নতুন কমিটির আহ্বায়ক বরিশাল সিটি করপোরেশনে চাকরি করছেন। তিনি চলতি মাসে গঠিত বরিশাল বিভাগীয় আঞ্চলিক সড়ক পরিবহন মালিক ফেডারেশনের সহসাংগঠনিক সম্পাদক এবং বরিশাল বিভাগীয় আঞ্চলিক সড়ক পরিবহন মালিক ও শ্রমিক ঐক্য ফেডারেশনের আইনবিষয়ক সম্পাদকের দায়িত্বে রয়েছেন। তাঁদের সাধারণ শিক্ষার্থীদের সঙ্গে কোনো যোগাযোগ নেই। এসএসসি পরীক্ষার সনদ অনুযায়ী তাঁর বয়স ৩২ বছর।

বক্তারা বলেন, ‘তালিকার ১ নম্বর যুগ্ম আহ্বায়ক মো. মাইনুল ইসলাম এক বছর আগে বিয়ে করেছেন। এসএসসির সনদ অনুযায়ী তাঁর বর্তমান বয়স ৩০ বছর। আর ২ নম্বর যুগ্ম আহ্বায়ক আরিফুর রহমান বিয়ে করেছেন চলতি বছরের ৩১ জানুয়ারি। তাঁর বয়সও ৩০–এর কাছাকাছি। আমরা এ বিতর্কিত কমিটি মানি না।’

সমাবেশে বক্তব্য দেন আসাদুজ্জামান মিরাজ, কে এম সজীব, এনজামামুল হক ইমন, মির আবীর প্রমুখ। সমাবেশ শেষে শুরু হয় গণস্বাক্ষর অভিযান।

আসাদুজ্জামান মিরাজ বলেন, ‘বিকেল সাড়ে ৪টা পর্যন্ত প্রায় ৫০০ শিক্ষার্থী আমাদের দাবি সমর্থন করে স্বাক্ষর করেছেন। কমিটি বাতিল না হওয়া পর্যন্ত আমাদের এ ধারাবাহিক আন্দোলন ও গণস্বাক্ষর অভিযান অব্যাহত থাকবে।’

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন