বিএনপির উদ্দেশে করে শেখ ফজুলল করিম সেলিম, ১০ তারিখ কেন, আগামী ১০০ বছরেও বিএনপি ক্ষমতায় আসতে পারবে না। কারণ, বিএনপি একটি জঙ্গি সংগঠন। সন্ত্রাসী, খুনি ও স্বাধীনতাবিরোধী সংগঠন বিএনপি। ২০১৫ সালে হরতালের নামে পাঁচ শতাধিক লোককে হত্যা করেছে বিএনপি। বঙ্গবন্ধুকে মেরে বাংলাদেশকে ৫০ বছর পিছিয়ে দিয়েছে।

শেখ ফজুলল করিম সেলিম আরও বলেন, ‘কোথায় ছিল গণতন্ত্র, আইনের শাসন যখন বঙ্গবন্ধুকে হত্যা করার পর ইনডেমনিটি অর্ডিন্যান্স জারি করা হয়েছিল। শেখ হাসিনাকে হত্যা করে আওয়ামী লীগকে নিশ্চিহ্ন করতে চেয়েছিল বিএনপি। এখন চোরের মার বড় গলা। শেখ হাসিনার সরকারের পতন ঘটাবে। দেশে তারেক রহমানকে নিয়ে আসবে। আসুক তারেক রহমান। আমরা চাই সে আসুক। একুশে গ্রেনেড হামলা ও অর্থ পাচারের মামলায় হওয়া সাজায় তাঁর ৩৭ বছরের জেল খাটার ব্যবস্থা আমরা করে দেব।’

সম্মেলনের উদ্বোধন করেন কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের। সম্মেলনে প্রধান অতিথি কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য শেখ ফজুলল করিম সেলিম ছাড়াও প্রধানবক্তা হিসেবে ছিলেন কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুব উল আলম হানিফ। ব্রাহ্মণবাড়িয়া-৩ আসনের সংসদ সদস্য ও জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি র আ ম উবায়দুল মোকতাদির চৌধুরীর সভাপতিত্বে স্বাগত বক্তব্য দেন জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আল মামুন সরকার। উপস্থিত ছিলেন বিজ্ঞান ও প্রযুক্তিবিষয়ক সম্পাদক ইঞ্জিনিয়ার মো. আবদুস সবুর, প্রেসিডিয়াম সদস্য কামরুল ইসলাম, সাংগঠনিক সম্পাদক আবু সাঈদ আল মাহমুদ স্বপন, ত্রাণ ও সমাজকল্যাণ সম্পাদক সুজিত রায় নন্দী, সদস্য ও সংসদ সদস্য পারভিন জামান ও মেরিনা জাহান, সংসদ সদস্য এরোমা দত্ত, সংসদ সদস্য বি এম ফরহাদুল ইসলাম, মোহাম্মদ এবাদুল করিম ও এ বি তাজুল ইসলাম।