গ্রেপ্তার দুই ব্যক্তি হলেন ধুন্দার দারোগাপাড়া এলাকার লোকমান আলীর ছেলে আল আমিন (৩২) ও নন্দীগ্রাম পশ্চিমপাড়া এলাকার ইসমাইল প্রামাণিকের ছেলে শহিদুল ইসলাম (৪০)।

পুলিশ ও স্থানীয় বাসিন্দাদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, গ্রেপ্তার আল আমিন ও শহিদুল দীর্ঘদিন ধরে ওএমএসের চাল কেনাবেচা ও কালোবাজারির সঙ্গে জড়িত ছিলেন। আজ সকালে ভটভটিভর্তি ৪০ বস্তা চাল নিয়ে শেরপুর উপজেলায় পাচারের সময় নন্দীগ্রামের ধুন্দার বাজারে তাঁদের হাতেনাতে আটক করেন স্থানীয় লোকজন।

নন্দীগ্রাম থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মো. আনোয়ার হোসেন বলেন, প্রতিটি বস্তায় ৫০ কেজি হিসাবে ৪০ বস্তায় ২ হাজার কেজি ওএমএসের চাল নন্দীগ্রাম থেকে শেরপুর উপজেলায় পাচারকালে জব্দ করা হয়। এ ঘটনায় নন্দীগ্রাম উপজেলার বুড়ইল ইউনিয়ন পরিষদের সদস্য আমিনুল ইসলাম বাদী হয়ে থানায় সরকারি চাল পাচারের মামলা করেন। ওই মামলায় গ্রেপ্তার দেখিয়ে দুই আসামিকে বিকেলে আদালতের মাধ্যমে কারাগারে পাঠানো হয়েছে।