আট বছর পর ১৭ জুলাই বরগুনা শহরের সিরাজ উদ্দীন টাউন হল মিলাায়তনে বরগুনা জেলা ছাত্রলীগের সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়। এরপর ২৪ জুলাই রাতে কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক জেলা ছাত্রলীগের নতুন কমিটির অনুমোদন দেন। এতে জেলা কমিটির সভাপতি, সাধারণ সম্পাদকসহ ৩৩ সদস্যের নাম প্রকাশ করা হয়।

আজকের বিক্ষোভ সমাবেশে বক্তব্য দেন বরগুনা জেলা ছাত্রলীগের সদ্যবিদায়ী সভাপতি জুবায়ের আদনান, জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি ও বরগুনা সদর উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান ইমরান হোসেন ওরফে রাসেল ফরাজি।

সমাবেশে জুবায়ের আদনান বলেন, ত্যাগী নেতাদের বঞ্চিত করে একটি কমিটি দেওয়া হয়েছে। আমরা ও ছাত্রলীগের সাবেক নেতারা এতে ব্যথিত। বঙ্গবন্ধুর আওয়ামী লীগকে শক্তিশালী করতে হলে আগে জেলা আওয়ামী লীগের হাতকে শক্তিশালী করতে হবে। কেউ যদি জেলা আওয়ামী লীগকে বাদ দিয়ে ছাত্রলীগ করতে চান, তাহলে সেই ছাত্রলীগ মানা হবে না।

সদ্যঘোষিত ছাত্রলীগের কমিটির বিষয়ে জেলা আওয়ামী লীগ অবহিত নয় বলে মন্তব্য করে উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান ইমরান হোসেন।

সমাবেশে তিনি বলেন, ‘সম্মেলনে অনেকেই প্রার্থী ছিলেন, তারাও এই কমিটির বিরুদ্ধে প্রতিবাদ করেছেন। এর ধারাবাহিকতায় আমরা প্রতিবাদ করছি। জেলা আওয়ামী লীগের বাইরে গিয়ে কোনো অঙ্গসংগঠনের নেতৃত্ব দেওয়া যায় না।’

বিক্ষোভ সমাবেশে উপস্থিত ছিলেন বরগুনা জেলা ছাত্রলীগের সভাপতিপ্রত্যাশী ইফরান আহম্মেদ। তিনি বরগুনা সদর উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি সিদ্দিকুর রহমানের ছেলে।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন