জানতে চাইলে সিলেট বিভাগীয় ট্রাক, পিকআপ, কাভার্ড ভ্যান মালিক সমিতির সাংগঠনিক সম্পাদক শাব্বীর আহমদ ফয়েজ বলেন, পাথর কোয়ারি খুলে দেওয়ার দাবিতে চলমান ধর্মঘটের পরবর্তী বিষয় নিয়ে আলোচনা চলছে। আজকেই ধর্মঘটের পরবর্তী সিদ্ধান্ত জানানো হবে।

তবে এর আগে গত রোববার জেলা প্রশাসক মো. মজিবর রহমান বলেছিলেন, পাথর কোয়ারি খুলে দেওয়ার ক্ষমতা জেলা প্রশাসনের নেই। বিষয়টি তিনি পরিবহননেতাদের জানিয়েছেন। তবে ৩ নভেম্বর মন্ত্রণালয়ের একটি প্রতিনিধিদল সিলেটে আসার কথা আছে। ওই প্রতিনিধিদলের কাছে পরিবহননেতাদের দাবি উপস্থাপনের জন্য পরামর্শ দেওয়া হয়েছে। তবে পরিবহনশ্রমিক ও মালিক সংগঠনের নেতারা বিষয়টি মানেননি।

এদিকে চলমান পণ্যবাহী পরিবহন ধর্মঘটের কারণে নগরের প্রবেশপথ ও শহরতলি এলাকায় পণ্যবাহী পরিবহনগুলোকে সারিবদ্ধভাবে দাঁড়িয়ে থাকতে দেখা গেছে। দুই দিনের ধর্মঘটের প্রভাব বাজারে পড়তে শুরু করেছে বলে জানিয়েছেন ক্রেতারা। বিশেষ করে সিলেটের কাঁচাবাজারে মালামাল কম আসছে বলে জানিয়েছেন আড়তদারেরা।