সাতক্ষীরা রেঞ্জের সহকারী বনসংরক্ষক ইকবাল হুসাইন জানান, কয়েকজন হরিণ শিকারি সুন্দরবনের গোলখালী এলাকায় হরিণ শিকার করছেন, এমন সংবাদের ভিত্তিতে কোবাদক স্টেশন কর্মকর্তা ফারুকুল ইসলামের নেতৃত্বে বনপ্রহরীরা ওই এলাকায় অভিযানে নামেন। শিকারিরা বন বিভাগের লোকজনের উপস্থিতি টের পেয়ে গা ঢাকা দেন। পরে অভিযান দলের সদস্যরা গোলখালী গ্রামের আদম আলী গাজীর বাড়িতে অভিযান চালিয়ে ৩০ কেজি হরিণের মাংস, হরিণের মাথা ও চামড়া জব্দ করেন এবং আদম আলীকে আটক করা হয়। এ সময় আরও তিনজন পালিয়ে যান।

ইকবাল হুসাইন আরও জানান, আদম আলী ঢালী বন বিভাগের তালিকাভুক্ত হরিণ শিকারি। তাঁর বিরুদ্ধে বন্য প্রাণী নিধন আইনে মামলা করা হয়েছে। তাঁকে কয়রা উপজেলা সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতের মাধ্যমে কারাগারে পাঠানো হয়েছে।