উপস্থিত ছিলেন ইউপি চেয়ারম্যান বি এম বরকত উল্লাহ, ওই ইউপির বৃক্ষরোপণ ও পরিবেশবিষয়ক স্ট্যান্ডিং কমিটির সভাপতি ৮ নম্বর ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য রবিউল ইসলাম, ইউপি সদস্য পারভীন ইসলাম, ইতিকা দাস, শিরিনা বেগম, মিন্টু দাস, রিজ্জাক খন্দকার, বাবলু শেখ, ঈমান আলী, রাজিব খান, আরশাদ মোল্লা, বিল্লাল শিকদার ও ওহিদুর খান। উপস্থিত ছিলেন স্থানীয় বীর মুক্তিযোদ্ধা, শিক্ষক, স্বেচ্ছাসেবী ও নানা শ্রেণি-পেশার মানুষ।

ওই ইউপির চেয়ারম্যান ও সদস্যরা জানান, খাশিয়াল ইউনিয়নের প্রতিটি ওয়ার্ডে ৭১টি বাড়িতে গাছ লাগানো হবে। এসব বাড়িতে একটি করে আম্রপালি আমগাছ ও পরিবারের সদস্যদের পছন্দের একটি ফুলের গাছ লাগানো হবে। বড়দিয়া-কালিয়া সড়কটি ওই ইউনিয়নের প্রধান সড়ক। ওই সড়কের ছয় কিলোমিটার এলাকা পড়েছে খাশিয়াল ইউনিয়নের মধ্যে। ওই অংশে ১ হাজার ৯৭১টি ফুল, ফল ও ঔষধি গাছ লাগানো হবে। ওই গাছের মধ্যে রয়েছে আমলকী, হরীতকী, বহেরা, অর্জুন, চালতা, বকুল, কৃষ্ণচূড়া, আমড়া, জারুল এবং রঙ্গন, চেরি, বাগানবিলাস, মাধবিলতার গাছসহ অন্যান্য গাছ।

এ কার্যক্রমের প্রধান উদ্যোক্তা ইউপি চেয়ারম্যান বি এম বরকত উল্লাহ। তিনি নড়াইল জেলা কমিউনিস্ট পার্টি অব বাংলাদেশের (সিপিবি) সভাপতি। তিনি জানান, এ উদ্যোগ নিতে ইউপিতে দুই দফা সভা করা হয়েছে। দেশের প্রতিটি ইউপিতে রয়েছে ১৩টি স্ট্যান্ডিং কমিটি। এর প্রতিটির সভাপতি ইউপি সদস্য। প্রতিটি স্ট্যান্ডিং কমিটিতে আছেন স্থানীয় বিভিন্ন শ্রেণি-পেশার মানুষ। এর একটি বৃক্ষরোপণ ও পরিবেশবিষয়ক স্ট্যান্ডিং কমিটি। ওই উদ্যোগ বাস্তবায়ন করতে ওই কমিটি ইতিমধ্যে দুটি সভা করেছে।

বি এম বরকত উল্লাহ বলেন, এ ইউপির চেয়ারম্যান ও সদস্যদের নিজস্ব অর্থায়ন এবং বন্ধু ও স্বজনদের অনুদানে ওই কার্যক্রম বাস্তবায়ন করা হচ্ছে। একাত্তরের চেতনা ধারণ করতে প্রথম পর্যায়ে সড়কে ১ হাজার ৯৭১টি গাছ ও প্রতিটি ওয়ার্ডে ৭১টি বাড়িতে গাছ লাগানো হচ্ছে। পর্যায়ক্রমে এ কার্যক্রম সম্প্রসারণ করা হবে। এ কার্যক্রম বাস্তবায়ন করতে স্থানীয় প্রায় ১০০ স্বেচ্ছাসেবী প্রতিদিন কাজ করবে।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন