পুলিশ ও স্থানীয় বাসিন্দাদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, গত শনিবার সন্ধ্যা ছয়টার দিকে নিখোঁজ হন পারভেজ। তাঁকে অনেক খোঁজাখুঁজির পরও না পেয়ে পরদিন রোববার পেকুয়া থানায় একটি সাধারণ ডায়েরি (জিডি) করেন স্বজনেরা। আজ বেলা ১১টার দিকে তারাবনিয়াপাড়া এলাকার পাহাড়ের ঢালে বস্তাবন্দী অবস্থায় পারভেজকে দেখতে পান স্থানীয় বাসিন্দারা। খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে পারভেজকে পেকুয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করে। উদ্ধারের সময় পারভেজ অচেতন ছিলেন।

জ্ঞান ফেরার পর বেলা তিনটার দিকে পারভেজ সাংবাদিকদের বলেন, মামুন ও শহীদুল্লাহ নামের দুই যুবক তাঁকে শনিবার সন্ধ্যায় তারবনিয়াপাড়া থেকে অপহরণ করে নিয়ে যান। রাতে পাহাড়ের একটি টংঘরে নিয়ে তাঁকে নির্যাতন করে কাপড় দিয়ে মুখ ও রশি দিয়ে হাত বাঁধা হয়। পরে বস্তায় ভরে পাহাড়ের ঢালে ফেলে দেন তাঁরা। পারভেজের দাবি, গত তিন দিন তিনি পাহাড়ের ঢালে বস্তাবন্দী অবস্থায় ছিলেন।

তবে পারভেজের ভাবি শারমিন আকতার প্রথম আলোকে বলেন, ‘এ ঘটনা আমরা আর বাড়তে দিতে চাই না। আমার দেবর মাঝেমধ্যেই বাড়ি থেকে নিরুদ্দেশ হয়ে যায়। এবারের ঘটনাও তেমন কিছু কি না সন্দেহ হচ্ছে।’ তবে তাঁকে বস্তাবন্দী অবস্থায় পাওয়া গেছে বলে তিনি জানান।

পেকুয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মো. ফরহাদ আলী বলেন, পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছে। উদ্ধার হওয়া যুবকের কথাবার্তায় কিছু অসংলগ্নতা আছে। ওই যুবকের পরিবারেরও কিছু কথা আছে। তাঁরা সব বিষয়ে খোঁজ নিচ্ছেন।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন