নিহত দুজন হলেন তাড়াশ উপজেলার বারুহাঁস ইউনিয়নের বৈদ্যনাথপুর গ্রামের শামছুল ইসলামের ছেলে রাব্বি ইসলাম (২০) ও চাঁপাইনবাবগঞ্জের গোমস্তাপুর উপজেলার রহমতপুর গ্রামের বাইরুল হোসেনের ছেলে শামীম হোসেন (২০)। আহত তরুণের নাম নাজমুল হাসান (২০)। তিনি নওগাঁর সাপাহার উপজেলার কলমডাঙ্গা গ্রামের একরামুল হকের ছেলে। রাব্বি রাজশাহী কলেজে রাষ্ট্রবিজ্ঞান বিভাগের শিক্ষার্থী। অপর দুজন একই কলেজের ইংরেজি বিভাগের শিক্ষার্থী।

আজ সকালে রাব্বির বাড়িতে শামীম ও নাজমুল বেড়াতে আসেন। বিকেলে তিন বন্ধু একটি মোটরসাইকেলে চেপে এলাকায় ঘুরতে বের হন।

পুলিশ ও এলাকাবাসী সূত্রে জানা যায়, রাজশাহীতে একসঙ্গে থেকে পড়ার কারণে রাব্বি, শামীম ও নাজমুল ভালো বন্ধু। আজ সকালে রাব্বির বাড়িতে শামীম ও নাজমুল বেড়াতে আসেন। বিকেলে তিন বন্ধু একটি মোটরসাইকেলে চেপে এলাকায় ঘুরতে বের হন। তাঁদের মোটরসাইকেলটি তাড়াশ-রানীরহাট আঞ্চলিক সড়কের বেড়খাড়ি এলাকায় এলে নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে গাছের সঙ্গে সজোরে ধাক্কা লাগে। এতে সড়কে ছিটকে পড়ে ঘটনাস্থলে রাব্বি ও শামীম নিহত হন। স্থানীয় লোকজন গুরুতর আহত অবস্থায় নাজমুলকে উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যান।

তাড়াশ থানার ওসি মো. শহিদুল ইসলাম সন্ধ্যা ৭টার দিকে জানান, নিহত রাব্বির মরদেহ তাঁর স্বজনেরা বাড়ি নিয়ে গেছেন। অপর মরদেহটি থানায় আনা হয়েছে। আহত শিক্ষার্থীকে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।