আবদুল কাইয়ুম বলেন, তিনি কয়েক দিন ধরে রাজধানী ঢাকায় কারিগরি শিক্ষা বোর্ডে প্রধান পরীক্ষকের কাজে ঢাকায় আছেন। বাসায় তাঁর স্ত্রী ও সন্তানেরা রয়েছেন। প্রতিদিনের মতো গতকাল সকালে বাসায় তালা দিয়ে তাঁর স্ত্রী বিদ্যালয়ে চলে যান। বিদ্যালয় থেকে একটি প্রশিক্ষণে উপজেলা পরিষদের যান। বিকেলের দিকে বড় মেয়ে স্কুল থেকে বাসায় গিয়ে দরজা খোলা দেখে ভেতরে ঢুকে জিনিসপত্র এলোমেলো অবস্থায় পড়ে থাকতে দেখে।

মেয়ের ফোন পেয়ে সামিমা খাতুন বাসায় এসে দেখতে পান দুর্বৃত্তরা বাসার দরজার তালা খুলে বা ভেঙে ভেতরে ঢুকে আলমারি থেকে ৭ ভরি স্বর্ণালংকার, ১ লাখ ৫০ হাজার টাকাসহ সাড়ে ৮ লাখ টাকার জিনিসপত্র চুরি করে নিয়ে গেছে। খবর পেয়ে সোনাগাজী মডেল থানার পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছে। দিনদুপুরে এমন ঘটনায় পার্শ্ববর্তী ভাড়াটেদের মধ্যে আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়েছে।

স্থানীয় ব্যবসায়ী মফিজ উদ্দিন বলেন, পৌরশহর এলাকায় ভাড়া থাকা লোকজন কর্মস্থলে চলে যাওয়ার পর প্রায় সময় দিনদুপুরে দরজার তালা কেটে ও ভেঙে চুরির ঘটনা ঘটছে। এসব ঘটনার রহস্য উদ্‌ঘাটন ও কেউ গ্রেপ্তার না হওয়ায় বাসার মালিক-ভাড়াটেসহ স্থানীয় মানুষের মধ্যে আতঙ্ক বিরাজ করছে।

সোনাগাজী মডেল থানার উপপরিদর্শক (এসআই) মো. মাইন উদ্দিন প্রথম আলোকে বলেন, খবর পেয়ে তিনি ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন। এ ঘটনায় শিক্ষক পরিবারের পক্ষ থেকে থানায় একটি লিখিত অভিযোগ দেওয়া হয়েছে। পুলিশ ঘটনাটি গুরুত্বের সঙ্গে খতিয়ে দেখছে। ঘটনাস্থলের আশপাশের সিসিটিভি ক্যামেরার ফুটেজ সংগ্রহ করে চোরদের শনাক্ত করার কাজ চলছে।