আজ বৃহস্পতিবার বিকেলে ঢাকা নদীবন্দর সদরঘাট এলাকায় সুন্দরবন নেভিগেশন গ্রুপের নতুন যাত্রীবাহী লঞ্চ এমভি সুন্দরবন-১৬-এর উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে খালিদ মাহমুদ চৌধুরী এ কথা বলেন। তিনি বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা যখন পদ্মা সেতুর সম্ভাবনা দেখলেন, তখন শুরু হলো ষড়যন্ত্র। এ ষড়যন্ত্র শুধু পদ্মা সেতুর বিরুদ্ধে নয়, এ ষড়যন্ত্র সরকার ও দেশকে সম্মিলিতভাবে একটি দুর্নীতির আবরণ দিয়ে ঢেকে দেওয়ার অপচেষ্টা।

নৌপরিবহন প্রতিমন্ত্রী আরও বলেন, রিজার্ভ নিয়ে বাংলাদেশের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র চলছে। বাংলাদেশের মানুষ এখন ডিজিটাল বাংলাদেশে বাস করছে। কোনো ষড়যন্ত্র করে লাভ হবে না।

বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নৌ চলাচল (যাত্রী পরিবহন) সংস্থার চেয়ারম্যান বীর বিক্রম মাহবুব উদ্দিন আহমেদের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল। অন্যদের মধ্যে বক্তব্য দেন জননিরাপত্তা বিভাগের জ্যেষ্ঠ সচিব আমিনুল ইসলাম খান, বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নৌপরিবহন কর্তৃপক্ষের (বিআইডব্লিউটিএ) চেয়ারম্যান কমোডর গোলাম সাদেক, সুন্দরবন গ্রুপের চেয়ারম্যান সাইদুর রহমান প্রমুখ।

সুন্দরবন লঞ্চের পরিচালক মো. ঝন্টু মিয়া বলেন, সুন্দরবন-১৬ লঞ্চটি ঢাকা-বরিশাল নৌপথে চলাচল করবে। এটির দৈর্ঘ্য ৩০০ ফুট ও প্রস্থ ৫৪ ফুট। লঞ্চটির যাত্রী ধারণক্ষমতা ১ হাজার ৫০০ জন। এতে রয়েছে লিফট ও ডুপ্লেক্স সুবিধা। এ ছাড়া দুই শতাধিক শীতাতপনিয়ন্ত্রিত কেবিন রয়েছে। তিনি আরও বলেন, লঞ্চটিতে উচ্চক্ষমতাসম্পন্ন ইঞ্জিন যুক্ত করা হয়েছে। রাতে চলাচলের জন্য উন্নত প্রযুক্তির রাডার ও জিপিএস রয়েছে। নদীর ডুবোচর ও পানির পরিমাণ নির্ধারণ করতে বসানো হয়েছে ইকো সাউন্ডার।