রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের শহীদ জিয়াউর রহমান হলের সামনে মানিক হোসেনের হোটেল। ক্যাম্পাসে তিনি ‘বাবু ভাই’ হিসেবে পরিচিত। তিনি ওই এলাকায় ২০০০ সাল থেকে এটি পরিচালনা করছেন।
আজ বিকেলে মানিক প্রথম আলোকে বলেন, ধীরে ধীরে দোকানে ক্রেতা বাড়ছে। অনেকেই জানেই না যে খাবার হোটেল খোলা হয়েছে। তিনি খাবারের মান বাড়িয়েছেন। মাছ ও মাংসের দাম আগের তুলনায় কিছু কমিয়েছেন। তবে গত এক সপ্তাহে আগের মতো কেউ খেয়ে টাকা না দিয়ে চলে যাননি। সবাই খাওয়ার পর টাকা দিয়েছেন। অনেকেই আর্থিক খোঁজখবরও নিয়েছেন। অনেকে বাকি বন্ধ করতে পরামর্শ দিয়েছেন।

মানিকের দাবি অনুযায়ী, শুধু করোনার প্রকোপ কমার পর ক্যাম্পাস খুললে মানিকের কাছে ১০০-এর বেশি শিক্ষার্থী বাকি খেয়েছেন। তাঁদের কাছে বাকি পড়েছে আড়াই লাখ টাকা। এসব শিক্ষার্থীর কাছ থেকে সর্বোচ্চ ২৮ হাজার থেকে সর্বনিম্ন ৫০০ টাকা পর্যন্ত তিনি পাবেন। তাঁদের বেশির ভাগই ছাত্রলীগের রাজনীতির সঙ্গে জড়িত।

মানিক বলেন, সাত দিনে এমন কয়েকজন শিক্ষার্থীও খেতে এসেছেন, যাঁদের কাছে তাঁর টাকা পাওনা আছে। তবে নতুন করে খাওয়ার পর তাঁদের আর টাকার কথা বলতে হয়নি। তাঁরা খাওয়ার পর নগদ টাকা পরিশোধ করেছেন। ছাত্রলীগের নেতারাও খেয়ে টাকা দিচ্ছেন। তবে বাকি রাখা শিক্ষার্থীরা বরাবরের মতো এখনো আশ্বাস দিয়ে যাচ্ছেন যে এই মাসের মধ্যে তাঁরা বাকি টাকা পরিশোধ করবেন। তিনিও সেই আশাতেই আছেন।