প্রবাসীর ছেলে ইকবাল হোসেন বলেন, তাঁর বাবা ও ছোট ভাই সৌদি আরবে থাকেন। ডাকাতেরা আলমারি ভেঙে ৮ ভরি স্বর্ণালংকার, ৪ লাখ ২০ হাজার টাকা, দুটি মোবাইল ফোন, লাইট ও কাপড়চোপড়সহ প্রায় ১০ লাখ ২০ হাজার টাকার মূল্যবান জিনিসপত্র লুট করে নিয়ে গেছে।

ইকবাল হোসেন আরও বলেন, ডাকাতের দেওয়া চেতনানাশক স্প্রের কারণে ১০ জন সদস্য অসুস্থ হয়ে যান। মালামাল লুট করে ডাকাত দলের সদস্যরা চলে যাওয়ার কিছুক্ষণ পরে তাঁর জ্ঞান ফিরলে তিনি চিৎকার শুরু করেন। তাঁর চিৎকার শুনে আশপাশের লোকজন এগিয়ে আসেন। পরে অসুস্থ ব্যক্তিদের উদ্ধার করে চিকিৎসার জন্য উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স ভর্তি করা হয়েছে। খবর পেয়ে রাতেই পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছে। এ ঘটনায় তিনি নিজে বাদী হয়ে থানায় একটি মামলার প্রস্তুতি নিচ্ছেন।

সোনাগাজী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স জরুরি বিভাগে দায়িত্বপ্রাপ্ত চিকিৎসক মো. আবদুল কুদ্দুস বলেন, আজ শনিবার দুপুর পর্যন্ত অসুস্থ ১০ জনের মধ্যে দুজনের জ্ঞান ফিরেছে। সবাই সুস্থ করে তুলতে চিকিৎসকেরা চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন।

সোনাগাজী মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. খালেদ হোসেন বলেন, ডাকাতির ঘটনায় ক্ষতিগ্রস্ত পরিবারের পক্ষ থেকে থানায় মামলার প্রস্তুতি চলছে । পুলিশ ডাকাতি হওয়া মালামাল উদ্ধারসহ ডাকাতদের গ্রেপ্তারের বিভিন্ন স্থানে অভিযান চালিয়ে যাচ্ছে।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন