এ বিষয়ে ফতুল্লা মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) রিজাউল হক প্রথম আলোকে বলেন, গত রোববার একটি মামলায় সাবেক ছাত্রদল নেতা জাকির খানকে ঢাকার কারাগার থেকে নারায়ণগঞ্জ আদালতে নিয়ে আসা হয়। দুপুরে হাজিরা শেষে তাঁকে ঢাকায় নিয়ে যাওয়ার পথে বিএনপির প্রায় ৩০০ নেতা–কর্মী ঢাকা-নারায়ণগঞ্জ লিংক রোডের জেলা পরিষদের সামনে রাস্তায় ব্যারিকেড দিয়ে যানবাহন চলাচলে প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টিসহ বেশ কয়েকটি গাড়ি ভাঙচুর করেন। এ সময় তাঁরা গাড়ির চাকার টায়ারে আগুন দেওয়াসহ ককটেলের বিস্ফোরণ ঘটান। খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে যাওয়ার আগেই বিএনপির নেতা-কর্মীরা ঘটনাস্থল ত্যাগ করেন।

রিজাউল হক আরও বলেন, এ ঘটনায় কাউকে গ্রেপ্তার করা যায়নি। এসআই শাহাদাত হোসেন বাদী হয়ে নাশকতার অভিযোগে মামলা করেছেন।

মামলার বিষয়ে ফতুল্লা থানা বিএনপির আহ্বায়ক জাহিদ হাসান প্রথম আলোকে বলেন, ‘বিএনপির নেতা–কর্মীরা নাশকতা করলে মানুষ দেখত। এমন কোনো ঘটনাই ঘটেনি। আগামী ১০ ডিসেম্বর ঢাকার সমাবেশকে কেন্দ্র করে বিএনপির নেতা–কর্মীদের হয়রানি করতে এ মিথ্যা মামলা দেওয়া হয়েছে। এ মামলা প্রত্যাহারের দাবি জানাই।’