এদিকে গতকাল রাত সাড়ে আটটার দিকে সর্দারবাড়ির দুলাল মিয়া গ্রামের বাজারে গেলে তাঁকে একা পেয়ে মারধর করেন প্রতিপক্ষের লোকজন। এ নিয়ে আবার দুই পক্ষ সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়ে। এতে ১৮ জন আহত হন। গুরুতর আহত দুলালকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে চিকিৎসকেরা তাঁকে মৃত ঘোষণা করেন।

দুলাল মিয়া শংকরপুর গ্রামের মতলিব মিয়ার ছেলে। আহত অপর চারজনকে সিলেট এম এ জি ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। অন্যরা হবিগঞ্জ ও বাহুবল উপজেলার হাসপাতালে ভর্তি হন। খবর পেয়ে বাহুবল থানা–পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে।

বাহুবল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) রাকিবুল ইসলাম বলেন, গ্রামের ভেতর দুটি পক্ষের মধ্যে আধিপত্য নিয়ে বিরোধ চলছিল। এ নিয়ে গতকাল সংঘর্ষ হয়। রাতে গ্রামের বাজারে প্রতিপক্ষের হামলায় দুলাল মারা যান।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন