দুর্ঘটনায় আহত হয়ে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যাওয়া দুজন হলেন গাজীপুরের টঙ্গীর নিতাই পালের স্ত্রী ঝর্ণা পাল (৩০) ও লিটন শীলের মেয়ে তনুশ্রী শীল (১২)। এর আগে ঘটনাস্থলে নিহত হন টাঙ্গাইলের দেলদুয়ার এলাকার শুক্কুর আলীর ছেলে আমির হামজা (৩৭) ও হাসপাতালে নেওয়ার পথে মারা যান নরসিংদী সদর উপজেলার পাঁচদোনা ইউনিয়নের কামারচর এলাকার একাব্বর মিয়ার ছেলে মজিবুর রহমান (৪০)।

মাধবদী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. রকীবুজ্জামান বলেন, এই দুর্ঘটনায় এক শিশু, এক নারীসহ চারজনের মৃত্যু হয়েছে। উত্তরার হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যাওয়া শিশু ও নারীর লাশ হস্তান্তরের প্রক্রিয়া চলছে। এর আগে মারা যাওয়া দুজনের লাশ স্বজনদের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে।

পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, সিলেট থেকে ছেড়ে আসা এনা পরিবহনের যাত্রীবাহী একটি বাস রাজধানী ঢাকার দিকে যাচ্ছিল। এদিকে পলাশের ঘোড়াশাল থেকে ছয় যাত্রী নিয়ে একটি অটোরিকশা পাঁচদোনার দিকে যাচ্ছিল। আঞ্চলিক সড়কটির চাকশাল এলাকায় পৌঁছানোর পর বাস ও অটোরিকশার মুখোমুখি সংঘর্ষ হয়। এতে অটোরিকশাটি দুমড়েমুচড়ে গিয়ে ঘটনাস্থলেই আমির হামজা নামের একজন মারা যান। পরে হাসপাতালে নেওয়ার পথে অটোরিকশাচালক মজিবুর রহমানের মৃত্যু হয়।