রেলস্টেশন সূত্র আরও জানায়, স্বাভাবিক সময়ে দুটি ট্রেনে দৈনিক টিকিটের চাহিদা ৩০০টি। ঈদের সময় দৈনিক চাহিদা দাঁড়ায় ৯০০ থেকে ১ হাজার। ফলে ঈদের পরদিন থেকে যাত্রীরা বাধ্য হয়ে ছাদে, বগির ভেতরে যত্রতত্র ভ্রমণ করছেন।

গত শনিবার দুপুরে রেলস্টেশনে গিয়ে দেখা গেছে, আন্তনগর লালমণি এক্সপ্রেসের যাত্রীদের উপচে পড়া ভিড়। কেউ কেউ ট্রেনের ছাদে উঠছেন। পুলিশ যাত্রীদের নিয়ন্ত্রণ করতে পারছেন না। কেউ বগির ভেতরে যাতায়াতের রাস্তায়, কেউ করিডরে বসে যাচ্ছেন, কেউ দুই বগির সংযোগস্থলে ঝুঁকি নিয়ে চলাচল করছেন। বগির ভেতরে স্বাভাবিকভাবে দাঁড়িয়ে থাকার জায়গা নেই যাত্রীদের গাদাগাদিতে।

শনিবার ভিড়ের মধ্যেই ট্রেনে উঠছেন গাইবান্ধা শহরের পৌর মার্কেটের ব্যবসায়ী মিলন মিয়া। তিনি বলেন, মালামাল আনতে প্রতি সপ্তাহে ঢাকায় যেতে হয়। টাকাপয়সা নিয়ে যাতায়াত করেন। তাই ট্রেনকে বেশি নিরাপদ মনে করেন। কিন্তু ট্রেনের টিকিট পাওয়া দুষ্কর। কে কখন অনলাইনে ঢুকে টিকিট কিনছেন, বোঝা যায় না। তাই দাঁড়ানো টিকিট নিয়েই ঢাকায় যেতে হচ্ছে।

সদর উপজেলার বোয়ালি গ্রামের চাকরিজীবী ফরিদ মিয়া বলেন, তিনি ঢাকায় চাকরি করেন। বাড়িতে তাঁর মা অসুস্থ। তিনি বাসে ভ্রমণ করতে পারেন না। তাঁকে নিয়ে ঢাকায় ফিরতে হবে। ১২ জুলাই ছুটি শেষ হয়েছে। টিকিট না পাওয়ায় ঢাকায় মাকে নিয়ে ফিরতে পারছিলেন না। ট্রেনে ভিড় দেখে ফিরে যাচ্ছেন।

গাইবান্ধা নাগরিক পরিষদের আহ্বায়ক সিরাজুল ইসলাম বলেন, অনলাইনে ট্রেনের টিকিট বিক্রির ব্যবস্থা করায় কালোবাজারে টিকিট বিক্রি বেড়েছে। ফলে অনলাইনের সুফল সাধারণ যাত্রীরা পাচ্ছেন না। কারণ, গাইবান্ধায় টিকিটের বরাদ্দ কম। অথচ জেলায় ২৬ লক্ষাধিক লোকের বসবাস।

কুড়িগ্রাম, লালমনিরহাট, কাউনিয়া থেকে পীরগাছা, বামনডাঙা, গাইবান্ধা, বোনারপাড়া, বগুড়া, সান্তাহার হয়ে ঢাকাগামী অন্তত আরও দুটি ট্রেন চালু করা দরকার। এ রুটে কুড়িগ্রাম এক্সপ্রেস ট্রেনও চালানো যেতে পারে। এতে রেলের আয়ও বাড়বে এবং এ অঞ্চলের যাত্রীরা সুবিধা পাবে। নতুবা সব সময় তাঁদের ভোগান্তি পোহাতে হবে।

গাইবান্ধা স্টেশনমাস্টার মো. আবুল কাশেম বলেন, চাহিদা অনুযায়ী টিকিটের বরাদ্দ না থাকায় যাত্রীরা বাধ্য হয়ে ছাদে, বগির ভেতরে যত্রতত্র ভ্রমণ করছেন। তাঁদের নিয়ন্ত্রণ করা যাচ্ছে না। গাইবান্ধায় টিকিটের বরাদ্দ বৃদ্ধির জন্য ব্যবস্থা নেওয়ার জন্য বিষয়টি ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে জানানো হয়েছে।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন