বাড়িটার জায়গা সরকারের সড়ক ও জনপথ বিভাগের। ২০১৬ সালে ক্রিকেটার সৌম্য সরকার, মোস্তাফিজুর রহমান, ফুটবলার সাবিনা খাতুন ও মাসুরাকে সংবর্ধনা দিয়েছিল জেলা প্রশাসন। ওই অনুষ্ঠানে মাসুরার বাবাকে একটি বাড়ি তৈরি করে দেওয়ার প্রতিশ্রুতি দেওয়া হয়েছিল। 

এর ধারাবাহিকতায় ২০২০ সালে তৎকালীন জেলা প্রশাসক মোস্তফা কামাল বেনেরপোতা এলাকায় ১৫ ফুট নিচু ডোবার মধ্যে ৮ শতক জমি দেন তাঁদের। কিন্তু বাড়িটি উচ্ছেদের জন্য পরে লাল চিহ্ন এঁকে দেয় সড়ক ও জনপথ বিভাগ। বাংলাদেশ দল সাফে চ্যাম্পিয়ন হওয়ার পর গত ২২ সেপ্টেম্বর সাতক্ষীরার বর্তমান জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ হুমায়ূন কবির মাসুরার বাড়িতে আসেন। ওই সময় বিষয়টি তাঁকে জানানো হলে, বাড়িটি যেন না ভাঙা হয়, সে ব্যাপারে মাসুরার বাবাকে আশ্বস্ত করেন।

এত কিছুর পরও এই ফুটবলারের পরিবারের সদস্যদের দুশ্চিন্তা কাটছেই না। রজব আলী অসহায়ের সুরে বলছিলেন, ‘এখানে বসবাসের পরিবেশ নেই। মাসুরা জাতীয় দলের ক্যাম্পে ভালো পরিবেশে থাকে। কিন্তু বাড়িতে এসে প্রচণ্ড গরমে একটুও ঘুমাতে পারে না। এবার সাফে চ্যাম্পিয়ন হওয়ার পর বাড়ি এসে রাতের বেলা গাছতলায় বসে কাটিয়েছে।’

৯ নভেম্বর প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সাফ চ্যাম্পিয়ন মেয়েদের সংবর্ধনা দেবেন। রজব আলীর আশা, প্রধানমন্ত্রী যেন মাসুরাকে সাতক্ষীরা শহরে আরেকটু ভালো জায়গায় স্থায়ী আবাসনের ব্যবস্থা করেন, ‘প্রধানমন্ত্রী তো ফুটবলারদের নিজের সন্তানের মতো দেখেন। আমাদের জন্য যদি ভালো একটা জায়গার ব্যবস্থা করে দেন তিনি, তাহলে দেশের জন্য আরও বড় সাফল্য আনতে পারবে সে।’ 

মাসুরাও চেয়ে আছেন প্রধানমন্ত্রীর দিকে, ‘প্রধানমন্ত্রী আমাদের ডেকেছেন। আমরা যাতে ভালো থাকি, সেই চেষ্টা সব সময়ই করেন তিনি। প্রধানমন্ত্রীর একটু সদয় দৃষ্টি পেলে আমি আর আমার পরিবারও ভালো থাকতে পারব।’