সাইফুল ইসলাম বলেন, ‘ইচ্ছা পূরণ করতে ১৭ বছর পর বিয়ের আনুষ্ঠানিকতা শেষ করলাম। আমাদের ১০ বছর বয়সের ছেলে ও ৭ বছর বয়সের মেয়েও অনুষ্ঠানে ছিল। বরযাত্রী নিয়ে গানবাজনা করে সাত গ্রাম ঘুরেছি।’

ওই দম্পতি ও এলাকাবাসী সূত্রে জানা গেছে, সাইফুল ও হেলেনার মধ্যে প্রেমের সম্পর্ক ছিল। প্রায় ১৭ বছর আগে গ্রামবাসীর উদ্যোগে তাঁদের বিয়ে হয়েছিল। তবে তখন সাইফুলের বিয়ের অনুষ্ঠান করার মতো সামর্থ্য ছিল না। তাই সাইফুল মনে মনে পণ করেছিলেন, সামর্থ্য হলে এক শ বরযাত্রী নিয়ে আনুষ্ঠানিকভাবে বিয়ের অনুষ্ঠান করবেন। সেই ইচ্ছা পূরণ করতে গতকাল আত্মীয়স্বজন, প্রতিবেশী এবং তাঁদের দুই সন্তানসহ শতাধিক বরযাত্রী নিয়ে বিয়ের আনুষ্ঠানিকতা শেষ করেন।

এ বিষয়ে চাপড়া ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) ৭ নম্বর ওয়ার্ডের সদস্য মনোয়ার হোসেন বলেন, ‘বর আর বউয়ের মধ্যে আগে প্রেম ছিল। স্থানীয় লোকজন তখন বিয়ের ব্যবস্থা করেছিল। তবে বরের ইচ্ছা ছিল অনুষ্ঠান করে বিয়ে করার। ১৭ বছর পর সেই ইচ্ছা পূরণ হয়েছে। এমন বিয়ের অনুষ্ঠান এই এলাকায় আগে কখনো হয়নি।’

চাপড়া ইউপির চেয়ারম্যান এনামূল হক মঞ্জু বলেন, ‘ফেসবুকে দেখেছি বাজনা বাজিয়ে বরযাত্রী নিয়ে বর-বউ গ্রামে গ্রামে ঘুরছে। বিষয়টি এলাকায় বেশ আলোচিত হয়েছে। তবে পুরো বিষয়টি এখনো জানতে পারিনি।’

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন