প্রত্যক্ষদর্শী ও স্থানীয়রা জানান, দুপুর ১২টার দিকে ওই নারী অসতর্কভাবে রেললাইন ধরে হেঁটে আমিরগঞ্জের দিকে আসছিলেন। ওই সময় চট্টগ্রাম থেকে ছেড়ে আসা আন্তনগর সুবর্ণ এক্সপ্রেস ট্রেনটি রাজধানী ঢাকার দিকে যাচ্ছিল। ট্রেনটি বেশ কয়েকবার হুইসেল দিলেও ওই নারী শুনতে পাচ্ছিলেন না। পরে পেছন থেকে আসা ওই ট্রেনে কাটা পড়ে তাঁর শরীর ছিন্নবিচ্ছিন্ন হয়ে যায়। এতে ঘটনাস্থলেই তাঁর মৃত্যু হয়।

স্থানীয়দের মাধ্যমে খবর পেয়ে বিকেল সাড়ে তিনটার দিকে নরসিংদী রেলওয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে নিহত নারীর লাশ উদ্ধার করেন। ছিন্নবিচ্ছিন্ন হয়ে যাওয়া ওই নারীর লাশের বিভিন্ন অংশ একত্রিত করে রেলওয়ে ফাঁড়িতে নিয়ে আসা হয়। খবর পেয়ে সালেহার স্বজনেরা সন্ধ্যার দিকে ফাঁড়িতে এসে লাশ শনাক্ত করেন। দুর্ঘটনার সময় তিনি রেললাইন ধরে হেঁটে রায়পুরার হাসনাবাদ এলাকায় বাবার বাড়িতে যাচ্ছিলেন বলে জানিয়েছে পরিবারের সদস্যরা।

নরসিংদী রেলওয়ে পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ ইমায়েদুল জাহেদী বলেন, দুই স্টেশনের মধ্যবর্তী স্থানে অসতর্কভাবে রেললাইনে হাঁটার সময় সুবর্ণ এক্সপ্রেস ট্রেনে কাটা পড়েন সালেহা। পরিবারের সদস্যদের আবেদনের প্রেক্ষিতে বিনা ময়নাতদন্তে লাশ হস্তান্তর করা হয়েছে।