খুরশিদা বেগম বলেন, ওই সময় তিনি, তাঁর মেয়ে এবং নাতনি বাড়িতে ছিলেন। ডাকাতদের মুখে কালো কাপড় বাঁধা ছিল। তাদের সবার হাতে রামদা ছিল। প্রথমে ডাকাতেরা তাঁদের মুঠোফোন ছিনিয়ে নেয়। এরপর ডাকাতদের একজন তাঁদের তিনজনকে একটি কক্ষে নিয়ে আটকে রেখে মাথায় ওপর রামদা ধরে রাখে। অন্য চার ডাকাত ঘরের আলমারি এবং শোকেস ভেঙে ৪০ হাজার টাকা এবং ১৬ ভরি স্বর্ণালংকার লুট করে নিয়ে যায়। সব মিলিয়ে তাঁদের প্রায় ১৪ লাখ টাকা লুট করা হয়েছে বলে তিনি দাবি করেন।

অভয়নগর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) এ কে এম শামীম হাসান বলেন, ডাকাতির খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছে। ওই বাড়ির যে ঘরের গ্রিল কেটে ডাকাত দল ভেতরে ঢোকে, ওই ঘরে কেউ থাকে না। তবে এ ঘটনায় এখনো কোনো লিখিত অভিযোগ পাওয়া যায়নি। তবে এ ব্যাপারে তদন্ত করা হচ্ছে।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন