আটক রোহিঙ্গারা হলেন ভাসানচর আশ্রয়ণ প্রকল্পের ৭০ নম্বর ক্লাস্টারের বাসিন্দা নূর বেগম (২১), খায়রুল আলামিন (২), সাইদুল আমিন (২৫), ৭৩ নম্বর ক্লাস্টারের এরফান উল্যাহ (২২), বিবি কুলসুম (২০) ও রবিউল হাসান (২)। এর আগে গত বুধবার ভাসানচর থেকে পালিয়ে আসা আরও সাতজন রোহিঙ্গাকে সুবর্ণচর থেকে আটক করে পুলিশে সোপর্দ করা হয়েছিল।

পুলিশ ও স্থানীয় লোকজনের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, শুক্রবার হাতিয়ার ভাসানচর আশ্রয়ণ প্রকল্প থেকে নারী-শিশুসহ সাত রোহিঙ্গা চট্টগ্রাম যাওয়ার উদ্দেশে দালালের মাধ্যমে পালিয়ে আসেন। দালাল চক্র কৌশলে তাঁদের সুবর্ণচর উপজেলার চর আলাউদ্দিন এলাকায় নামিয়ে দিয়ে পালিয়ে যায়। পরে শুক্রবার রাত ১১টার দিকে উপজেলার চর আলাউদ্দিন এলাকায় সাত রোহিঙ্গা বিভিন্ন স্থানে ঘোরাফেরা করতে থাকেন। স্থানীয় লোকজনের বিষয়টি সন্দেহ হলে তাঁদের আটক করে জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়। একপর্যায়ে তাঁরা রোহিঙ্গা বলে স্বীকার করেন এবং ভাসানচর থেকে পালিয়ে এসেছেন বলে জানান। পরে বিষয়টি চরজব্বর থানায় জানানো হয়। পুলিশ তাঁদের আটক করে থানায় নিয়ে যায়।

জানতে চাইলে নারী-শিশুসহ সাতজন রোহিঙ্গাকে আটকের বিষয়টি নিশ্চিত করেন সুবর্ণচরের চরজব্বর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) দেবপ্রিয় দাস। তিনি প্রথম আলোকে বলেন, আটক রোহিঙ্গারা শুক্রবার চট্টগ্রাম যাওয়ার উদ্দেশে দালালের মাধ্যমে ভাসানচর থেকে পালিয়ে এসেছিলেন। তবে দালালেরা তাঁদের সুবর্ণচরে নামিয়ে পালিয়ে যান। পরে স্থানীয় লোকজন তাঁদের আটক করে থানায় খবর দেন। দেবপ্রিয় দাস আরও বলেন, আটক রোহিঙ্গাদের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের নির্দেশনা অনুযায়ী আজ শনিবার বিকেলে ফের ভাসানচরে পাঠিয়ে দেওয়া হবে।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন