চার নেতাকে বহিষ্কারের বিষয়টি প্রথম আলোকে নিশ্চিত করেছেন জেলা বিএনপির সভাপতি আবদুল কাইয়ুম চৌধুরী। তিনি জানান, দলীয় শৃঙ্খলাপরিপন্থী কর্মকাণ্ডে জড়িত থাকার অভিযোগে দলের গঠনতন্ত্র অনুযায়ী তাঁদের বহিষ্কার করা হয়েছে। আজ মঙ্গলবার রাতে কেন্দ্রীয় বিএনপির জ্যেষ্ঠ যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী স্বাক্ষরিত এক চিঠিতে এ বিষয়টি জানানো হয়েছে।

বহিষ্কৃত নেতাদের মধ্যে ওসমানীনগর উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতাকারী মো. কামরুল ইসলাম আছেন। তিনি উপজেলা বিএনপির যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক। এ ছাড়া একই উপজেলায় ভাইস চেয়ারম্যান পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতাকারী মো. গয়াস মিয়া ও নারী ভাইস চেয়ারম্যান পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতাকারী মুসলিমা আক্তার চৌধুরীকেও বহিষ্কার করা হয়েছে। তাঁরা যথাক্রমে উপজেলা বিএনপির সহসভাপতি ও মহিলাবিষয়ক সম্পাদক হিসেবে দায়িত্ব পালন করছিলেন।

এদিকে সিলেটের বিশ্বনাথ পৌরসভা নির্বাচনে মেয়র পদপ্রার্থী মুমিন খানকেও বহিষ্কার করা হয়েছে। তিনি যুক্তরাজ্যের নিউহাম বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক। বহিষ্কারপত্রে তাঁর প্রাথমিক সদস্য পদ থেকে বহিষ্কার করা হয়েছে বলে উল্লেখ করা হয়। এর আগে গত ৩০ অক্টোবর বিশ্বনাথ পৌরসভা নির্বাচনে মেয়র পদে প্রার্থী হওয়া উপজেলা বিএনপির সভাপতি জালাল উদ্দিনকেও দল থেকে বহিষ্কার করেছে কেন্দ্রীয় বিএনপি।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে জেলা বিএনপির এক নেতা প্রথম আলোকে বলেন, বিএনপি বর্তমান সরকার ও নির্বাচন কমিশনের অধীন সব ধরনের নির্বাচনে অংশগ্রহণ থেকে বিরত থেকে সরকারের পদত্যাগের দাবিতে বিএনপি আন্দোলন করছে। এ অবস্থায় দলীয় মনোভাবকে উপেক্ষা করে যাঁরা প্রার্থী হয়েছেন, তাঁদের স্বাভাবিকভাবেই বহিষ্কার করা হয়েছে। এর মাধ্যমে দলীয় নেতা-কর্মীদের একধরনের কঠোর সাংগঠনিক বার্তাও পৌঁছে দেওয়া হলো।