প্রথমবার অনুষ্ঠিত বিশ্বনাথ পৌরসভা নির্বাচনে মেয়র পদে স্বতন্ত্র প্রার্থী মুহিবুর রহমান ৮ হাজার ৪৭৪ ভোট পেয়ে বেসরকারিভাবে নির্বাচিত হন। তাঁর নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী আওয়ামী লীগের মনোনীত প্রার্থী (নৌকা প্রতীক) ফারুক আহমদ পেয়েছেন ৩ হাজার ২৬৩ ভোট।

মুহিবুর রহমান আওয়ামী লীগের রাজনীতি করলেও তাঁর দলীয় কোনো পদ নেই। তিনি বিশ্বনাথ উপজেলা পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান। ফারুক আহমদ উপজেলা আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক।

এদিকে ওসমানীনগর উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী জেলা যুবলীগের সভাপতি শামীম আহমদ ২৮ হাজার ৯৩২ ভোট পেয়ে বেসরকারিভাবে বিজয়ী হয়েছেন। তাঁর নিকতম প্রতিদ্বন্দ্বী (ঘোড়া প্রতীক) বিএনপি নেতা কামরুল ইসলাম পেয়েছেন ১৪ হাজার ৪১৬ ভোট।

গোয়াইনঘাটের চার ইউনিয়নের তিনটিতে জয় বিদ্রোহীদের

সিলেটের গোয়াইনঘাট উপজেলার চারটি ইউনিয়ন পরিষদে নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে তিনটিতে ‘আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী’ জয়ী হয়েছেন। একটি ইউনিয়নে জয়ী হয়েছেন নৌকা প্রতীকের প্রার্থী। জয়ী তিনজনই দল মনোনীত প্রার্থীর বিরোধিতা করে নির্বাচনে অংশ নেওয়ায় সম্প্রতি আওয়ামী লীগ থেকে বহিষ্কৃত হয়েছেন।

বুধবার সকাল আটটা থেকে বিকেল চারটা পর্যন্ত এ চারটি ইউনিয়নে ভোট গ্রহণ অনুষ্ঠিত হয়। এতে গোয়াইনঘাট সদর ইউনিয়নে বিদ্রোহী প্রার্থী গোলাম রব্বানী চেয়ারম্যান নির্বাচিত হন। তাঁর নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী ছিলেন আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী সুভাস চন্দ্র পাল।

পশ্চিম জাফলং ইউনিয়নে বিদ্রোহী প্রার্থী মামুন পারভেজ জয়ী হয়েছেন। তাঁর নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী ছিলেন স্বতন্ত্র প্রার্থী মুন্সি আবদুল মুমিন। পূর্ব জাফলং ইউনিয়নে জয়ী হয়েছেন আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী মো. রফিকুল ইসলাম। তাঁর নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী হামিদুল হক ভূঁইয়া। মধ্য জাফলং ইউনিয়নে চেয়ারম্যান পদে বিদ্রোহী প্রার্থী মো. লোকমান শিকদার নির্বাচিত হয়েছেন। তাঁর নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী অপর স্বতন্ত্র প্রার্থী মো. শাইদুর রহমান।