মেহেদী হাসান প্রথম আলোকে বলেন, গতকাল সকাল ১০টা থেকে বিকেল ৫টা পর্যন্ত স্টেশনে অবস্থান কর্মসূচি পালন করেছেন তাঁরা। এ সময় ট্রেনযাত্রীদের ব্যাপক সাড়া তাঁরা পেয়েছেন। বেশির ভাগ মানুষ এই কর্মসূচিকে সমর্থন করছেন। কারণ, বেশির ভাগ যাত্রীই হয়রানির শিকার। ছয় দফা দাবি যাত্রীদের দাবি। তিনি বলেন, ‘সবচেয়ে আশ্চর্যের বিষয় হচ্ছে, আজ সকালে যখন আমরা অবস্থান কর্মসূচি শুরু করি, ঠিক তখনই কয়েকজন কালোবাজারি এই কর্মসূচি বন্ধ করে প্ল্যাটফর্ম ছেড়ে চলে যাওয়ার হুমকি দেন আমাদের। আমরা সত্যিই অবাক হয়েছি। তাঁদের কত বড় সাহস! প্রকাশ্যে তাঁরা হুমকি দেন। তাঁরা এখনো স্টেশন এলাকায় এবং প্ল্যাটফর্মের ভেতরে টিকিট কালোবাজারি করছেন। নিশ্চয় তাঁদের পেছনে বড় কোনো শক্তি কাজ করছে।’

আবদুল্লাহ ভূঁইয়া বলেন, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের মহিউদ্দিন রনির ছয় দফা দাবির সঙ্গে সংহতি জানাচ্ছেন তাঁরা। রেলওয়ের দুর্নীতি যে শুধু রনির সঙ্গে হয়েছে, এমনটি নয়; প্রতিদিন সারা দেশের বেশির ভাগ যাত্রী এ ধরনের হয়রানির শিকার হচ্ছেন। প্রতিটি স্টেশনে টিকিট কেনা অনেক জটিল এবং কালোবাজারির দৌরাত্ম্য রয়েছে। রেলওয়ে কর্তৃপক্ষ দাবি না মানা পর্যন্ত তাঁরা বিভিন্ন কর্মসূচি চালিয়ে যাবেন বলে জানান।

এই চার শিক্ষার্থীর ছয় দফা দাবির মধ্যে আছে টিকিট কেনার ক্ষেত্রে সহজ ডটকমের যাত্রী হয়রানি অবিলম্বে বন্ধ করা ও হয়রানির ঘটনা তদন্ত করে ব্যবস্থা নেওয়া; যথোপযুক্ত পদক্ষেপের মাধ্যমে টিকিটের কালোবাজারি প্রতিরোধ; অনলাইনে কোটায় টিকিট ব্লকিং বা বুকিং বন্ধ করা ও অনলাইন-অফলাইনে টিকিট কেনার ক্ষেত্রে সর্বসাধারণের সমান সুযোগ-সুবিধা নিশ্চিত করা; যাত্রীর চাহিদার সঙ্গে সংগতি রেখে ট্রেনের সংখ্যা বৃদ্ধিসহ রেলের অবকাঠামো উন্নয়নে দীর্ঘমেয়াদি পরিকল্পনা নেওয়া; ট্রেনের টিকিট পরীক্ষক-তত্ত্বাবধায়কসহ অন্য দায়িত্বশীল ব্যক্তির কর্মকাণ্ড সার্বক্ষণিক নজরদারি ও শক্তিশালী তথ্য সরবরাহব্যবস্থা গড়ে তোলার মাধ্যমে রেলসেবার মান বাড়ানো এবং ট্রেনে ন্যায্য দামে খাবার বিক্রি, বিনা মূল্যে বিশুদ্ধ পানি সরবরাহ ও স্বাস্থ্যসম্মত স্যানিটেশনের ব্যবস্থা নিশ্চিত করা।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন