বগুড়া শহরের যানজট নিয়ে দুর্ভোগ, ভোগান্তির এ চিত্র ভোর থেকে মধ্যরাত পর্যন্ত। যানজট নিরসনে পরিকল্পিত ও সমন্বিত উদ্যোগ না থাকায় দিন দিন পরিস্থিতির অবনতি ঘটছে।

ঠনঠনিয়া বাস টার্মিনাল এলাকা দিয়েই রিকশায় চড়ে গন্তব্যে যাচ্ছিলেন নাজমা খানম। তিনি প্রথম আলোকে বলেন, শহরের ভেতরে বাস টার্মিনাল। টার্মিনালের জন্য আলাদা জায়গা না থাকায় সড়কের ওপরে গাড়ি দাঁড় করানো। আবার গাড়ি ঘোরানোর জন্য সড়ককেই ব্যবহার করছেন চালকেরা। ফলে দিন-রাত এখানে যানজটের ভোগান্তি পোহাতে হয় যাত্রীদের।

শহরের গুরুত্বপূর্ণ অন্য সড়কগুলোতেও সিএনজি অটোরিকশা, ইজিবাইক, মোটরসাইকেলের স্ট্যান্ড ও সড়কের দুই পাশ হকার, মৌসুমি ফলের ব্যবসায়ীদের দখলে থাকায় তীব্র যানজটের সৃষ্টি হচ্ছে। সকাল ৮টা থেকে রাত ১০টা পর্যন্ত শহরের ভেতরে ভারী যানবাহন চলাচলে নিষেধাজ্ঞা থাকলেও সেটির তোয়াক্কা করছেন না কেউ। সকাল থেকে দিনভর শহরে চলাচল করতে দেখা যায় যাত্রীবাহী বাস ও পণ্যবাহী ট্রাক।

বগুড়া পৌরসভা সূত্রে জানা গেছে, শহরের রাস্তায় চলাচলের জন্য প্যাডেলচালিত ৬ হাজার ২০০ রিকশার লাইসেন্স দেওয়া হয়েছে। কিন্তু বাস্তবে এর কয়েক গুণ বেশি প্যাডেল ও ব্যাটারিচালিত রিকশা চলাচল করছে। এর বাইরে আছে প্রায় ২০ হাজারের ব্যাটারিচালিত ইজিবাইক। প্রতিদিন শহরের রাস্তায় বৈধ-অবৈধ মিলিয়ে প্রায় এক লাখ যানবাহন চলাচল করছে। এ ছাড়া শহরের বিভিন্ন সড়কে ২৫ থেকে ৩০টি অবৈধ অটোরিকশার স্ট্যান্ড গড়ে তোলা হয়েছে। শহরের গুরুত্বপূর্ণ সড়কগুলোর পাশে বহুতল ভবন নির্মাণ করা হলেও অনেক ভবনেই পার্কিংয়ের ব্যবস্থা নেই। ফলে সড়কের পাশে পার্ক করায় রাস্তা সংকুচিত হয়ে যানজটের সৃষ্টি হচ্ছে।

বগুড়া পৌরসভার মেয়র রেজাউল করিম বাদশা প্রথম আলোকে বলেন, প্যাডেলচালিত ৬ হাজার ২০০ রিকশার লাইসেন্স দেওয়া হলেও অর্ধেকই চলে না।

শহরের রাস্তাঘাট এখন ব্যাটারিচালিত অটোরিকশার দখলে। শহরকে যানজটমুক্ত করতে সর্বোচ্চ চেষ্টা করছেন তিনি।

বগুড়া ট্রাফিক পুলিশের পরিদর্শক (প্রশাসন) রফিকুল ইসলাম মঙ্গলবার প্রথম আলোকে বলেন, ‘জনবল কম হওয়ায় ব্যস্ততম শহরে মাঝেমধ্যে একটু যানজট লেগে যায়। আমরা সাধ্যমতো চেষ্টা করে যাচ্ছি।’ তিনি বলেন, শহরের ঠনঠনিয়া টার্মিনালে বাসের ধারণক্ষমতা সর্বোচ্চ ১০টি। সেখানে বাস ঢোকানো হয় গড়ে ৩০টি। সড়কের ওপর গাড়ি ঘোরানো হয়। যানজটের অন্যতম কারণ অবৈধ ব্যাটারিচালিত রিকশার দাপট। রাজনৈতিক তদবিরে অবৈধ রিকশা আটকের অভিযান বন্ধ রয়েছে। শহর যানজটমুক্ত করতে দু-এক দিনের মধ্যে অবৈধ যানবাহন আটকের অভিযান জোরদার করা হবে।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন