বিরল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা রেজাউল হাসান বলেন, আজ সকালে জাতীয় জরুরি সেবা নম্বরে (৯৯৯) ফোন পেয়ে বিদ্যালয়ের পরিত্যক্ত কক্ষে দুই শিশুর লাশ পড়ে থাকার কথা জানতে পারেন। পরে ঘটনাস্থল থেকে লাশ দুটি উদ্ধার করা হয়েছে। তাদের বাবার সন্ধান পাওয়া যায়নি। ধারণা করা হচ্ছে, পারিবারিক কলহের জেরে শিশু দুটি হত্যার শিকার হয়েছে। বাবার খোঁজ পেলে প্রকৃত ঘটনা জানা যাবে।

প্রতিবেশীদের সূত্রে জানা যায়, শরীফুল ইসলাম পেশায় কৃষিকাজের সঙ্গে যুক্ত। পাশাপাশি আইসক্রিম বিক্রি করেন। স্বামী-স্ত্রীর মধ্যে দীর্ঘদিন ধরে দ্বন্দ্ব চলছিল। কিছুদিন আগে স্ত্রী এক পরিচিতজনের মাধ্যমে ঢাকায় গিয়ে একটি পোশাক কারখানায় কাজ শুরু করেন। গত সপ্তাহে স্বামী শরিফুলের কাছে একটি তালাকনামা পাঠিয়েছেন তিনি।

শরীফুল ইসলামের বাবা রফিকুল ইসলাম বলেন, গতকাল বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় শীতের পোশাক কিনে দেওয়ার কথা বলে দুই সন্তান নিয়ে বাড়ি থেকে বের হন শরিফুল। অনেক রাত পর্যন্ত বাড়ি না ফিরলে শরিফুলের মুঠোফোনে কল করেন তিনি। দিবাগত রাত আড়াইটায় ফোন ধরে শরিফুল তাঁকে বলেন, ছেলেদের বিষ খাইয়ে মেরে ফেলেছেন, নিজেও বিষ খাবেন। তবে কোথায় আছেন, তা না জানিয়ে ফোন কেটে দেন। এখন পর্যন্ত তিনি নিখোঁজ।