জলিলের দুই প্রতিবেশী ও জয়দেবপুর থানার পুলিশের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, জলিলের সঙ্গে চাচাতো ভাইদের দীর্ঘদিন ধরে জমি নিয়ে বিরোধ চলছিল। গতকাল রাতে জলিল বাড়ির পাশে একটি মসজিদে এশার নামাজ শেষ করে বাড়িতে ফিরছিলেন। ফেরার পথে জলিলের সঙ্গে সিদ্দিকুর, বাদল ও ইদ্রিসের বাগ্‌বিতণ্ডা হয়। একপর্যায়ে প্রতিপক্ষের লোকজন জলিলকে পিটিয়ে গুরুতর আহত করেন। এ সময় জলিলের চিৎকার শুনে আশপাশের লোকজন এগিয়ে এলে প্রতিপক্ষের লোকজন পালিয়ে যান।

পরে প্রতিবেশীরা জলিলকে আহত অবস্থায় উদ্ধার করে স্থানীয় একটি হাসপাতালে নিয়ে গেলে চিকিৎসক তাঁকে মৃত ঘোষণা করেন। খবর পেয়ে জয়দেবপুর থানার পুলিশ রাতে জলিলের লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য গাজীপুরের শহীদ তাজউদ্দীন আহমদ মেডিকেল কলেজের মর্গে পাঠিয়েছে।

স্থানীয় বাসিন্দারা বলেন, জলিলের সঙ্গে চাচাতো ভাইদের চলা বিরোধের জেরে এর আগেও মারামারির ঘটনা ঘটেছে। কিন্তু বিষয়টির সমাধান হয়নি।

পুলিশ জানিয়েছে, এ ঘটনার পর থেকে অভিযুক্ত তিন ব্যক্তি বাড়িতে নেই। তাঁরা গা ঢাকা দেওয়ায় এ বিষয়ে অভিযুক্ত ব্যক্তিদের বক্তব্য পাওয়া যায়নি।

জয়দেবপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মাহাতাব উদ্দিন বলেন, হত্যাকাণ্ডের ঘটনায় অভিযুক্ত ব্যক্তিদের ধরতে গতকাল রাতে তাঁদের বাড়িতে অভিযান চালানো হয়েছে। তবে বাড়িতে তালা ঝুলিয়ে সবাই পালিয়ে গেছেন। এ ঘটনায় আইনগত ব্যবস্থা প্রক্রিয়াধীন।