পিডিবির বিদ্যুৎ গ্রাহকেরা জানান, গত মঙ্গলবার থেকে আজ শুক্রবার ভোর ছয়টা পর্যন্ত উপজেলার ১৬টি ফিডারে কোথাও কোথাও ৬ থেকে ৮ ঘণ্টা, আবার কোথাও ১২-১৫ ঘণ্টা পর্যন্ত লোডশেডিং হয়েছে। এ ছাড়া দৈনিক বিদ্যুতের আসা-যাওয়ার খেলা চলে ১২ থেকে ১৬ বার।

উপজেলার কচুয়া গ্রামের হায়দার আলী নামের একজন গ্রাহক প্রথম আলোকে বলেন, ‘এখন প্রচণ্ড গরম। লোডশেডিংয়ের কারণে কয়েক দিন ধরে রাতের বেলায় ঘুমাতে পারি না। গত রাতেও জেগে হাতপাখা দিয়ে বাচ্চাদের ঘুম পাড়িয়েছি।’

উপজেলার বড়চওনা গ্রামের ব্যবসায়ী মিজানুর রহমান বলেন, বাড়িতে আইপিএস রয়েছে। কিন্তু অতিরিক্ত সময় লোডশেডিং থাকায় আইপিএসও চার্জ হচ্ছে না।

সখীপুর প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক সাজ্জাদ লতিফ প্রথম আলোকে বলেন, পৌর শহরের ফিডারে উপজেলা চেয়ারম্যান, ইউএনও, মেয়র ওসি, বিদ্যুৎ বিভাগের কর্মকর্তা ও আওয়ামী লীগের বড় নেতাদের বাসাবাড়ি থাকায় লোডশেডিং তুলনামূলকভাবে কম। অন্যদিকে গ্রামের অবস্থা ভয়াবহ। গ্রামের মানুষ বিদ্যুৎ পাচ্ছে দৈনিক ছয় থেকে আট ঘণ্টা।

সখীপুর পিডিবির নির্বাহী প্রকৌশলী (বিক্রয় ও বিতরণ) মেহেদি হাসান ভূঞা প্রথম আলোকে বলেন, ‘বিদ্যুৎ সরবরাহ কম পাওয়ায় রুটিনের বাইরেও লোডশেডিং করতে হয়েছে। আমরা চেষ্টা করছি রুটিন অনুসরণ করতে।’

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন