তালা থানা পুলিশ জানায়, গতকাল রাতে ঘটনাস্থলে গিয়ে ওই মেয়েকে উদ্ধার করে থানায় নিয়ে আসা হয়েছে। এ ঘটনায় ওই স্কুলছাত্রীর মা বাদী হয়ে রাতে থানায় মামলা করেছেন। পুলিশ অভিযুক্ত তরুণকে আটকের চেষ্টা করছে।

অভিযুক্ত রাসেল বাদশার বাবা ইউপি সদস্য মইনুল ইসলাম প্রথম আলোকে বলেন, ‘আমার ছেলের সঙ্গে ওই মেয়ের যদি সম্পর্ক থেকে থাকে তাহলে তাকে অবশ্যই বিয়ে করতে হবে। কোনো ধরনের আপত্তি শোনা হবে না।’

ওই ছাত্রী বলে, প্রায় এক বছর আগে রাসেলের সঙ্গে তার প্রেমের সম্পর্ক হয়। একপর্যায়ে তাকে বিয়ে করার আশ্বাস দেন রাসেল। বর্তমানে সে দুই মাসের অন্তঃসত্ত্বা। তাকে বিয়ে না করতে চাওয়ায় বাধ্য হয়ে রাসেলের বাড়িতে অনশন করে। এরপর পুলিশ এলে বিষয়টি জানায় এবং তারা রাসেলের বিরদ্ধে মামলা করার পরামর্শ দেয়। পরে তার মা রাসেলের বিরুদ্ধে মামলা করেন।

তালা থানা ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) চৌধুরী রেজাউল করিম প্রথম আলোকে বলেন, ওই স্কুলছাত্রীকে বিয়ের প্রতিশ্রুতি দিয়ে একাধিকবার ধর্ষণ করার অভিযোগে তার মা আজ সকালে মামলাটি করেন। মামলার আসামি রাসেল বাদশাকে গ্রেপ্তারের চেষ্টা চলছে।