তবে পাহাড়ে যাঁরা ভ্রমণ করেন, তাঁরা সবাই দীর্ঘদিন ধরে দাবি করে আসছেন, তাজিংডং নয়, সাকা হাফং বা মদক তং দেশের সবচেয়ে উঁচু পর্বতশৃঙ্গ। এই বিতর্ক নিরসনের জন্য জরিপ অধিদপ্তর থেকে দেশের সর্বোচ্চ পর্বতশৃঙ্গ নির্ণয়ের সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।

জরিপ অধিদপ্তরের উপসহকারী তত্ত্বাবধায়ক এরশাদুল হক মণ্ডল এই দলের নেতৃত্ব দেবেন। জরিপ দলটি থানচি ও রুমায় ৪০ দিন ধরে বিভিন্ন পাহাড়ের উচ্চতা পরিমাপ করবেন বলে জানিয়েছেন অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) সুরাইয়া আক্তার সুইটি।

জরিপ অধিদপ্তরের সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিরা জানিয়েছেন, জরিপ দলের সদস্যরা প্রথমে থানচিতে যাবেন। সেখানে রেমাক্রি ও তিন্দু ইউনিয়নের সাকা হাফং পাহাড়সহ দুর্গম এলাকায় অবস্থিত পাহাড়গুলোতে ২৫ দিন জরিপকাজ চালাবেন। সেখান থেকে দলটি রুমা উপজেলায় গিয়ে ১৫ দিন অবস্থান করবে। তাঁরা প্রিসিশন টোটাল স্টেশন (পিটিএস), আরটিকে-জিপিএস, স্ট্যাটিক জিপিএস, হ্যান্ড হেল্ড জিপিএস, আরটিকে রেডিও লিংক জিপিএস লেভেল মেশিনসহ উন্নত প্রযুক্তির মাধ্যমে সমুদ্র সমতল থেকে উঁচু পাহাড়গুলোর চূড়ার গড় উচ্চতা নির্ণয় করবেন।

আজ বুধবার জেলা প্রশাসক ইয়াছমিন পারভীন তিবরীজি বলেছেন, দেশের উঁচু পাহাড়গুলোর বেশির ভাগই বান্দরবানের রুমা ও থানচি উপজেলায় অবস্থিত। কিন্তু সরকারি হিসাব অনুযায়ী তাজিংডং দেশের সর্বোচ্চ পাহাড়। পাশাপাশি বেসরকারিভাবে কখনো কেওক্রাডং, তাজিংডং ও কখনো আবার সাকা হাফং বা মদক তংকে সর্বোচ্চ পর্বতশৃঙ্গ দাবি করা হয়। এই অবস্থায় দেশের সর্বোচ্চ পাহাড়ের শীর্ষবিন্দু বা শৃঙ্গ নির্ণয় করতে পাহাড়গুলো সরকারিভাবে পরিমাপ করে প্রজ্ঞাপন (গেজেট) প্রণয়ন করা দরকার হয়ে পড়ে। এ জন্য তিনি গত ২৩ মে জরিপ অধিদপ্তরের সার্ভেয়ার জেনারেলকে চিঠি পাঠিয়েছেন। ওই চিঠির পরিপ্রেক্ষিতে জরিপ অধিদপ্তর থেকে জরিপের কাজ করার পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছে।