কৃষিমন্ত্রী আরও বলেন, আন্দোলন–সংগ্রামের নামে ২০১৪ সালের মতো সহিংসতা করতে চাইলে বিএনপিকে সমুচিত শিক্ষা দেওয়া হবে। স্বাধীনতাবিরোধীদের নিয়ে দেশে অরাজকতা সৃষ্টি করতে চাইলে তাদের চরম মূল্য দিতে হবে।

সমবায়ের শক্তিকে দেশ গঠনের কাজে লাগানোর আহ্বান জানিয়ে মন্ত্রী বলেন, ‘সমবায়ের বিরাট শক্তি রয়েছে। এর সম্ভাবনা অনেক, তবে চ্যালেঞ্জও অনেক। সমবায়ভিত্তিক উৎপাদনব্যবস্থা চালু করতে পারলে দেশে কৃষি উৎপাদন আরও বাড়ানো সম্ভব। কিন্তু সমবায়ের সমস্যা হলো, যাকেই দায়িত্ব দেওয়া হয় বা ‘ম্যানেজার’ হয়, সে–ই দুর্নীতি করে। দেশের অনেক সমবায় প্রতিষ্ঠান ভালো নেতৃত্বের অভাবে, স্বচ্ছতা ও জবাবদিহির অভাবে ব্যর্থ হয়েছে।’

সভায় সভাপতিত্ব করেন মধুপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা শামীমা ইয়াসমীন। এতে উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ছরোয়ার আলম খান, ভাইস চেয়ারম্যান শরীফ আহমদ নাসির, উপজেলা পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান খন্দকার আব্দুল গফুর, উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি খন্দকার শফিউদ্দিন, পৌর মেয়র সিদ্দিক হোসেন খান প্রমুখ বক্তব্য দেন।