বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, মেলান্দহ উপজেলা ছাত্রলীগের এক জরুরি সিদ্ধান্ত মোতাবেক মো. মমিনুল ইসলামকে সাংগঠনিক শৃঙ্খলাভঙ্গের অভিযোগে ঝাউগড়া ইউনিয়ন ছাত্রলীগ শাখার সভাপতি পদ থেকে সাময়িক অব্যাহতি প্রদান করা হলো। কেন আপনার বিরুদ্ধে চূড়ান্ত শাস্তিমূলক সাংগঠনিক ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে না, তার উপযুক্ত কারণসহ লিখিত জবাব, নোটিশ প্রদানের তারিখ থেকে আগামী তিন কার্য দিবসের মধ্যে সশরীর উপস্থিত হয়ে মেলান্দহ উপজেলা শাখার দপ্তরে জমা দেওয়ার নির্দেশ দেওয়া হলো।

মেলান্দহ উপজেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক মো. ইসমাইল হোসাইন বলেন, মমিনুল ইসলাম ফেসবুকে জেলা আওয়ামী লীগ সম্পর্কে বাজে মন্তব্য করেছিলেন। এতে ছাত্রলীগ ও আওয়ামী লীগের ভাবমূর্তি ক্ষুণ্ন হয়েছে। এ কারণে তাঁকে সাময়িক অব্যাহতি দেওয়াসহ কারণ দর্শানোর নোটিশ দেওয়া হয়েছে।

এ ব্যাপারে কথা বলতে মমিনুল ইসলামের মুঠোফোনে যোগাযোগ করা হলে তাঁর মুঠোফোন বন্ধ পাওয়া যায়।

প্রসঙ্গত, গত সোমবার প্রবীণ এক আওয়ামী লীগ নেতার জমি দখলের অভিযোগে জামালপুর জেলা যুব মহিলা লীগের সভাপতি ফারহানা সোমাকে সভাপতির দায়িত্বসহ সব রাজনৈতিক ও সাংগঠনিক কর্মকাণ্ড থেকে বিরত থাকার নির্দেশ প্রদান এবং একই সঙ্গে সভাপতির পদ থেকে অব্যাহতি প্রদানের জন্য বাংলাদেশ কেন্দ্রীয় যুব মহিলা লীগের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদককে সুপারিশ করে চিঠি দেয় জামালপুর জেলা আওয়ামী লীগ। এর দুই দিন পর গত বুধবার ওই ছাত্রলীগ নেতা একটি স্ট্যাটাসের নিচে মন্তব্য করেন, কিছু হলুদ সাংবাদিকদের নিউজ দেখে, কোনো তদন্ত ছাড়াই ফারহানা সোমার মতো একজন নারী কর্মীকে কাগজ ধরিয়ে দেওয়া ঠিক হয়নি।