বন্দর কর্তৃপক্ষের হারবার বিভাগ সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে। বিদেশি জাহাজ ইয়ং শুনের স্থানীয় শিপিং এজেন্ট হক অ্যান্ড সন্স লিমিটেডের খুলনার ব্যবস্থাপক মো. শওকত আলী বলেন, আজ রাত ইয়ং শুন জাহাজটি থেকে মেশিনারি পণ্য খালাসের কার্যক্রম শুরু হবে। আগামীকাল বৃহস্পতিবার সকাল থেকেই সেগুলো নদীপথে পৌঁছাবে সিরাজগঞ্জের যমুনা নদীতে নির্মাণাধীন বঙ্গবন্ধু রেল সেতু প্রকল্প এলাকায়।

২৪ ঘণ্টার মধ্যেই বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব রেলওয়ে সেতুর সরঞ্জাম খালাস করা হবে।

মেশিনারি পণ্য খালাসকারী শ্রমিক ঠিকাদার প্রতিষ্ঠান মেসার্স বি অ্যান্ড এম রহমানের খুলনার ব্যবস্থাপক নুরুল ইসলাম বলেন, ৬ নভেম্বর ভিয়েতনামের ফুমে বন্দর থেকে মোংলা বন্দরের উদ্দেশে ছেড়ে আসে ইয়ং শুন জাহাজটি। এর থেকে ২৪ ঘণ্টার মধ্যেই বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব রেলওয়ে সেতুর সরঞ্জাম খালাস করা হবে। এর আগে ১১টি জাহাজে আসা বঙ্গবন্ধু রেল সেতুর ৪০ হাজার মেট্রিক টন মেশিনারি পণ্য খালাস করা হয়েছে বলেও জানান তিনি।

মোংলা বন্দর কর্তৃপক্ষের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান কমোডর মো. ওয়াদুদ তরফদার বলেন, দেশের চলমান মেগা প্রকল্পগুলোর মধ্যে অন্যতম বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব রেলওয়ে সেতু। এটির বাস্তবায়ন এখন দৃশ্যমান। রেল সেতুর মেশিনারি পণ্যের চালান মোংলা বন্দর দিয়ে আমদানি হওয়াটা এ বন্দরের ব্যাপক সক্ষমতার প্রমাণ দেয়।

সিরাজগঞ্জে যমুনা নদীর ওপর বঙ্গবন্ধু রেলওয়ে সেতু হচ্ছে দেশের সর্ববৃহৎ রেল সেতু। মোট ৫০টি পিলারের ওপর গড়ে উঠবে ৪ দশমিক ৮ কিলোমিটার দৈর্ঘ্যের ডুয়েল গেজ ডাবল ট্র্যাকের এ সেতু।