সমাবেশে বক্তারা বলেন, আন্তর্জাতিক বাজারে যখন জ্বালানির দাম কমেছে, তখন রেকর্ড তেলের দাম বাড়িয়েছে সরকার। জ্বালানির গড় মূল্য বেড়েছে ৪৭ শতাংশ। নিত্যপণ্যের উচ্চমূল্যের সময়ে জ্বালানির মূল্যবৃদ্ধি জনজীবনে ভয়াবহ বিপর্যয় নিয়ে আসবে। কৃষির উৎপাদন ব্যয় বাড়বে। ইতিমধ্যে গণপরিবহনের ভাড়া বাড়ানো হয়েছে। আইএমএফের শর্ত পূরণ করতেই একলাফে এই মূল্যবৃদ্ধি। এটা দেশের শ্রমজীবী মানুষের জীবন দুর্বিষহ করে তুলবে।

নেতারা বলেন, জ্বালানির মূল্যবৃদ্ধির সঙ্গে সঙ্গে শুরু হয় পরিবহনের নৈরাজ্য। রোববার দূরপাল্লার বাসে ২২ দশমিক ২২ ও নগরে ১৬ দশমিক ২৭ শতাংশ ভাড়া বাড়িয়েছে সরকার। ঢাকা-নারায়ণগঞ্জ রুটে ৪৫ টাকার ভাড়া বাড়িয়ে ৬৫ টাকা করেছে। সরকারি হিসাবেও ভাড়া ৫০ টাকার বেশি হয় না। গতকাল ঢাকা, লক্ষ্মীপুর, বরিশালসহ অনেক জেলায় জ্বালানির মূল্যবৃদ্ধি প্রতিবাদে বিক্ষোভ সমাবেশে পুলিশ ও সরকার দলীয় গুন্ডাবাহিনী হামলা চালিয়েছে। দমন-পীড়নের পথে সরকার জনগণের ন্যায়সংগত আন্দোলন বন্ধ করতে চায়।

নেতারা আরও বলেন, সরকার বিইআরসিকে পাশ কাটিয়ে নির্বাহী আদেশে জ্বালানির দাম বাড়িয়ে আইন লঙ্ঘন করেছে। অবিলম্বে জ্বালানি তেল ও পরিবহনের বর্ধিত মূল্য প্রত্যাহার করতে হবে এবং সারা দেশে বিক্ষোভ কর্মসূচিতে হামলাকারী পুলিশ ও সন্ত্রাসীদের শাস্তি নিশ্চিত করতে হবে।

এদিকে জ্বালানির মূল্য ও গণপরিবহনের বর্ধিত ভাড়া প্রত্যাহার ও ঢাকায় ছাত্র সমাবেশে পুলিশি হামলাকারীদের শাস্তির দাবিতে বিকেলে মানববন্ধন ও বিক্ষোভ মিছিল করেছে সমাজতান্ত্রিক ছাত্র ফ্রন্ট নারায়ণগঞ্জ জেলা শাখা। সংগঠনটির জেলা সভাপতি মুন্নী সরদারের সভাপতিত্বে সমাবেশে বক্তব্য দেন সাধারণ সম্পাদক ফয়সাল আহমেদ, সাংগঠনিক সম্পাদক সাইফুল ইসলাম প্রমুখ।