গতকাল রোববার বেলা ১১টার দিকে কুমিরা ঘাটে গিয়ে দেখা যায়, সারি সারি নৌকা সন্দ্বীপ চ্যানেল থেকে ঘাটে ফিরছে। কোনো নৌকায় পাঁচজন আবার কোনো নৌকায় এরও বেশি শ্রমিক। কিন্তু মাছের সংখ্যা পাঁচটির কম। ইলিশ কম পাওয়ায় পাইকারেরও দেখা নেই।

কুমিরা ঘাটে কথা হয় জেলে সুমন জলদাসের সঙ্গে। তিনি প্রথম আলোকে বলেন, তাঁদের মন ভালো নেই। ৬৫ দিন তাঁরা সাগরে যাননি। কিন্তু মাছ ধরতে গিয়ে দেখেন, সাগরে ইলিশ নেই। ৯ দিনে ৩ হাজার টাকার ইলিশ ধরেছেন। অথচ তাঁর সাড়ে ৯ হাজার টাকা খরচ হয়ে গেছে।

অপর জেলে হরিধন জলদাস প্রথম আলোকে বলেন, তাঁর ২০টি জাল সাগরে ফেলা আছে। সেখান থেকে মাছ ধরে আনতে একটি নৌকায় চারজন শ্রমিক যেতে হয়। প্রতিবার সাগরে যেতে দেড় হাজার টাকার জ্বালানি লাগে। তাঁর জালে ছোট আকারের আটটি (দুই কেজি) ইলিশ ধরা পড়েছে।

উপজেলা মৎস্য কর্মকর্তার কার্যালয় সূত্র জানায়, গত বছর ৬৫ দিন বন্ধের পর প্রথম ৯ দিনে ২০০ টনের বেশি ইলিশ ধরা পড়েছিল। কিন্তু এ বছর ৯০ টন ইলিশ ধরা পড়েছে।

ইলিশ কম ধরা পড়ার কারণ জানতে চাইলে উপজেলা মৎস্য কর্মকর্তা কামাল উদ্দিন চৌধুরী প্রথম আলোকে বলেন, এ বছর বর্ষায় বৃষ্টি কম হয়েছে। এর ফলে উজান থেকে পর্যাপ্ত মিঠাপানির স্রোত আসছে না সন্দ্বীপ চ্যানেলে। এ কারণে গভীর সাগর থেকে চ্যানেলগুলোর দিকে ইলিশ কম আসছে। এ জন্য চ্যানেলগুলোতে ইলিশ কম ধরা পড়ছে। কিন্তু যাঁরা গভীর সমুদ্রে জাল ফেলছেন, তাঁদের জালে প্রচুর ইলিশ ধরা পড়ছে। বৃষ্টি না হলে চ্যানেলে ইলিশে আসার সম্ভাবনা কম বলে তিনি জানান।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন