এপিবিএন জানায়, নিহত ইব্রাহিম জকির বাহিনীর সক্রিয় সদস্য ছিলেন। তিনি টেকনাফ উপজেলার হ্নীলা ইউনিয়নের নয়াপাড়া রোহিঙ্গা শিবিরের সি ব্লকের বাসিন্দা আবদুর রাজ্জাকের ছেলে।

রোহিঙ্গা শিবিরে নিরাপত্তায় নিয়োজিত ১৬ এপিবিএনের অধিনায়ক ও ডিআইজি হাসান বারী নুর প্রথম আলোকে বলেন, গতকাল সন্ধ্যায় উপজেলার হ্নীলা ইউনিয়নের নয়াপাড়া রেজিস্টার্ড রোহিঙ্গা শিবিরসংলগ্ন পাহাড়ি এলাকায় দুদল সন্ত্রাসীর মধ্যে গোলাগুলি হয়। খবর পেয়ে পুলিশের একটি দল ঘটনাস্থলে গেলে সন্ত্রাসীরা পালিয়ে যায়। সেখানে একজনকে গুলিবিদ্ধ অবস্থায় পাওয়া যায়। ওই ব্যক্তিকে উদ্ধার করে প্রথমে টেকনাফ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নেওয়া হয়। পরে কক্সবাজার জেলা সদর হাসপাতালে নেওয়ার কিছুক্ষণ পর তাঁর মৃত্যু হয়।

উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের জরুরি বিভাগের চিকিৎসক ইসফাক কামাল বাপ্পী বলেন, মাথায় আঘাত পাওয়া ও বুকে গুলি লাগা অবস্থায় এক ব্যক্তিকে রাতে হাসপাতালে আনা হয়। তাঁর অবস্থা আশঙ্কাজনক হওয়ায় প্রাথমিক চিকিৎসা দিয়ে দ্রুত কক্সবাজার সদর হাসপাতালে পাঠানো হয়।

ময়নাতদন্তের জন্য লাশটি কক্সবাজার সদর হাসপাতালের মর্গে রাখা হয়েছে বলে জানিয়েছেন অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মো. ইবনে মিজান। তিনি বলেন, এ ঘটনায় জড়িত সন্ত্রাসীদের গ্রেপ্তারে অভিযান চলছে।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন