পুলিশ জানায়, সন্ধ্যায় বাবুল খান ষষ্ঠ শ্রেণির চারুপাঠ, নবম ও দশম শ্রেণির সাধারণ বিজ্ঞান ও পদার্থবিজ্ঞানের ৩৩০টি বই উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তার কার্যালয় থেকে কিনে প্লাস্টিকের বস্তায় ভরে ভ্যানে করে নিয়ে যাচ্ছিলেন।

সন্ধ্যা সাতটার দিকে নওয়াপাড়া বাজারের পুরাতন বাসস্ট্যান্ডের সামনে বইগুলো ভ্যান থেকে বাসে ওঠানোর জন্য দাঁড়িয়ে ছিলেন তিনি। খবর পেয়ে পুলিশ গিয়ে বইগুলো জব্দ ও তাঁকে আটক করে।

জানতে চাইলে ভ্যানচালক মফিজ মোল্লা প্রথম আলোকে বলেন, ‘উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তার কার্যালয়ের অফিস সহকারী খালিদ ইবনে মহি আমাকে রাস্তা থেকে ডেকে নিয়ে বইগুলো নওয়াপাড়া বাসস্ট্যান্ডে পৌঁছে দিতে বলেন। এরপর আমি বইগুলো বাসস্ট্যান্ডে পৌঁছে দিই।’

অভয়নগর উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তার কার্যালয়ে বইয়ের মেমো দিতে এসেছিলেন জানিয়ে বাবুল খান বলেন, ফিরে যাওয়ার সময় ওই অফিসের খালিদ ইবনে মহি তাঁকে ৩৩০টি বই নিয়ে যশোর জেলা অফিসে জমা দেওয়ার কথা বলেন। তাঁর কথামতো বইগুলো যশোরের উদ্দেশে নিয়ে যাচ্ছিলেন তিনি।

জানতে চাইলে অভয়নগর উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা শহিদুল ইসলাম বলেন, ‘আমার অফিস থেকে কোনো বই জেলা শিক্ষা অফিসে পাঠানো হয়নি। এ ধরনের কোনো রিকুইজিসন আমার কাছে নেই। অফিসের গোডাউন থেকে বইগুলো কীভাবে বের হলো, তা খতিয়ে দেখা হচ্ছে।’

এ ঘটনায় মামলা হচ্ছে জানিয়ে অভয়নগর থানার সহকারী উপপরিদর্শক মো. শিলন রাত সাড়ে নয়টার দিকে বলেন, গোপনে খবর পেয়ে নওয়াপাড়া বাসস্ট্যান্ড থেকে বইগুলো জব্দ করা হয়। বাবুল খানকে আটক করা হয়েছে।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন