স্থানীয় কয়েকজন বাসিন্দা ও প্রত্যক্ষদর্শী সূত্রে জানা গেছে, ফিরোজ ওই বাজারে হার্ডওয়্যারের ব্যবসা করেন। নাজিরপুর ইউপির উপনির্বাচনকে কেন্দ্র করে ১৮ জুলাই তাঁর ব্যবসাপ্রতিষ্ঠানে তালা লাগিয়ে দেন আওয়ামী লীগের মনোনীত চেয়ারম্যান প্রার্থীর কর্মী ও সমর্থকেরা। বুধবার তিনি (ফিরোজ) তাঁর দোকান খোলেন। বৃহস্পতিবার সন্ধ্যা সাড়ে সাতটার দিকে তিনি (ফিরোজ) তাঁর দোকান বন্ধ করছিলেন। এ সময় স্থানীয় আবু বক্করের (৫৭) নেতৃত্বে ১০-১২ জনের একটি সন্ত্রাসী দল ওই দোকানে ঢুকে ফিরোজের ওপর হামলা চালায়। এ সময় হামলাকারী ব্যক্তিরা ফিরোজকে হাতুড়িপেটা করে গুরুতর আহত করেন। স্থানীয় লোকজন পুলিশে খবর দিলে পুলিশের উপস্থিতি টের পেয়ে হামলাকারী ব্যক্তিরা পালিয়ে যান। পুলিশ আহত ফিরোজকে উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে পাঠানোর ব্যবস্থা করে।

আবু বক্কর নৌকা প্রতীকের সক্রিয় কর্মী। আহত ফিরোজ মাতুব্বর অভিযোগ করে বলেন, নির্বাচনকে কেন্দ্র করে নৌকার কর্মী আবু বক্করের নেতৃত্বে তাঁর ওপর হামলা চালানো হয়। হামলাকারী ব্যক্তিরা তাঁর দোকান ও সমিতির মোট ৫৫ হাজার টাকা ও মুঠোফোন ছিনিয়ে নিয়ে গেছে।

এ বিষয়ে জানতে আবু বক্করের মুঠোফোনে ফোন করলে তা বন্ধ পাওয়া যায়। বাউফল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা আল মামুন বলেন, খবর পেয়ে পুলিশ পাঠিয়ে আহত ব্যক্তিকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তির ব্যবস্থা করা হয়েছে। লিখিত অভিযোগ পেলে আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

প্রসঙ্গত, বুধবার ওই ইউপিতে ভোট গ্রহণের কথা ছিল। আচরণবিধি লঙ্ঘনের অভিযোগে তদন্ত প্রতিবেদন না পাওয়া এবং ইলেকট্রনিক ভোটিং মেশিনে (ইভিএম) ভোট নিয়ে আওয়ামী লীগের মনোনীত প্রার্থীর পক্ষে এক আওয়ামী লীগ নেতার বিতর্কিত মন্তব্যের পরিপ্রেক্ষিতে গত সোমবার ভোট স্থগিত করে প্রজ্ঞাপন জারি করে নির্বাচন কমিশন (ইসি)।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন