এ ঘটনায় গতকাল রাতে জেলার খোকসা এলাকা থেকে মো. আলম (৩৮) নামের একজনকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। আজ দুপুরে আদালতের মাধ্যমে তাঁকে কারাগারে পাঠানো হয়েছে। গ্রেপ্তার আলম নন্দনালপুর ইউনিয়নের বাঁশআরা গ্রামের বাসিন্দা।

পুলিশ ও নিহত ব্যক্তির পরিবার সূত্রে জানা গেছে, নন্দনালপুর ইউনিয়নের এক মেয়ের সঙ্গে নয়ন কুমারের প্রেম ছিল। এ নিয়ে দুই পরিবারের মধ্যে বিরোধ চলছিল। গত শনিবার মধ্যরাত থেকে নিখোঁজ হন নয়ন। রোববার ভোরে নন্দনালপুর ইউনিয়নের সোন্দাহ নতুন পাড়া মাঠে তাঁকে রক্তাক্ত অবস্থায় পাওয়া যায়। উদ্ধার করে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেওয়ার পথে মৃত্যু হয় তাঁর।

এ ঘটনায় নয়ন কুমার সরকারের বাবা যগেশ কুমার গতকাল রাতে কুমারখালী থানায় হত্যা মামলা করেন। মামলায় ওই মেয়ের চাচাসহ আটজনকে আসামি করা হয়।

মামলার এজাহারে যগেশ কুমার সরকার উল্লেখ করেছেন, ওই মেয়ের পরিবার নয়নকে হুমকি দিয়ে আসছিল। প্রেমের জেরেই তাঁর ছেলেকে আসামিরা ডেকে নিয়ে হাতুড়ি, লোহার রডসহ বিভিন্ন দেশীয় অস্ত্র দিয়ে পিটিয়ে হত্যা করেছেন।

কুমারখালী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) কামরুজ্জামান তালুকদার প্রথম আলোকে বলেন, প্রেমের জেরে হত্যার অভিযোগে থানায় মামলা করেছেন নিহত ব্যক্তির বাবা। ইতিমধ্যে একজনকে গ্রেপ্তার করে আদালতের মাধ্যমে কারাগারে পাঠানো হয়েছে। বাকি আসামিদের ধরতে অভিযান চলছে।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন