‘দুর্যোগে বিএনপি পালিয়ে যাওয়া দল’ দাবি করে স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, ‘করোনাকালে অনেক চিকিৎসক-নার্স চিকিৎসা দিতে গিয়ে মারা গেছেন। এত ভয়ের মধ্যেও কোনো চিকিৎসক কাজ না করে পালিয়ে যাননি। আর বিএনপির লোকেরা পার্লামেন্টের ভেতরে ও বাইরে শুধু মিথ্যাচার করে বেড়ায়। করোনার সময় নাকি হাসপাতালে কোনো চিকিৎসা সেবা পায় নাই। অথচ করোনার সময় বিএনপির নেতা-কর্মীসহ একটা লোকও মানুষের পাশে ছিল না।’

বাংলাদেশে করোনাভাইরাস নিয়ন্ত্রণে আছে জানিয়ে জাহিদ মালেক বলেন, করোনার প্রকোপ দেশ থেকে এমনি এমনি কমে যায়নি। এ জন্য সরকারকে কাজ করতে হয়েছে। দেশের মানুষকে শুধু ৪০ হাজার কোটি টাকার করোনার টিকা দেওয়া হয়েছে।

এ সময় অন্যান্যের মধ্যে জাতীয় সংসদের চিফ হুইপ নূর-ই আলম চৌধুরী, স্বাস্থ্য শিক্ষা ও পরিবারকল্যাণ বিভাগের সচিব মো. সাইফুল হাসান, মাদারীপুরের জেলা প্রশাসক রহিমা খাতুন, পুলিশ সুপার মো. মাসুদ আলম, জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মুনীর চৌধুরী প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

এর আগে স্বাস্থ্যমন্ত্রী বঙ্গবন্ধু মহাসড়কের পাশে নির্মিত ইলিয়াছ আহম্মেদ চৌধুরী ট্রমা সেন্টার ও বড় বাহাদুরপুর এলাকায় নির্মিত শেখ হাসিনা ইনস্টিটিউট অব হেলথ টেকনোলজির (আইএইচটি) উদ্বোধন করেন। এ ছাড়া স্বাস্থ্য খাতসংশ্লিষ্ট আরও কিছু উন্নয়নমূলক কাজের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করেন মন্ত্রী।