পানিতে ডুবে শিশু মৃত্যু রোধে বাংলাদেশের প্রস্তাবের পরিপ্রেক্ষিতে পানিতে ডুবে মৃত্যুকে ‘নীরব মহামারি’ হিসেবে স্বীকৃতি দিয়ে প্রতিবছর ২৫ জুলাই আন্তর্জাতিকভাবে ‘পানিতে ডুবে মৃত্যু প্রতিরোধ দিবস’ পালনের সিদ্ধান্ত নেয় জাতিসংঘ।

আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে এস এম কবির হাসান বলেন, চলতি বছরের ৬ মাসে জেলায় ৪৬টি শিশু পানিতে ডুবে মারা গেছে। এর মধ্যে কলাপাড়ায় সর্বোচ্চ ১৯টি শিশু মারা গেছে। এ ছাড়া বাউফলে ও গলাচিপায় ৯টি, দশমিনায় ৭টি এবং মির্জাগঞ্জে ও দুমকিতে ১টি করে শিশু মারা গেছে। তবে সদর উপজেলার তথ্য সংরক্ষিত না থাকায় এখানে পানিতে ডুবে শিশুমৃত্যুর তথ্য পাওয়া যায়নি।

কবির হাসান বলেন, পানিতে ডুবে শিশুমৃত্যু রোধে অভিভাবকদের সচেতন হতে হবে। এ ব্যাপারে স্বাস্থ্য বিভাগ প্রচার-প্রচারণা চালিয়ে যাচ্ছে। এ ছাড়া প্রয়োজনে বাড়ির পাশে পুকুরের চারদিকে বেড়া দেওয়া ও অপ্রয়োজনীয় ডোবা মাটি ফেলে ভরাট করে দেওয়া যেতে পারে। পাশাপাশি নির্দিষ্ট বয়সের পর শিশুদের সাঁতার শেখানোর বিষয়টি সামাজিক আন্দোলনে রূপ দিতে হবে বলে মনে করেন তিনি।

পটুয়াখালী প্রেসক্লাবের সভাপতি কাজী সামছুর রহমান ইকবালের সভাপতিত্বে সভায় বিশেষ অতিথি ছিলেন জেলা শিক্ষা কর্মকর্তা মো. মজিবর রহমান ও প্রেসক্লাবের সাবেক সভাপতি স্বপন ব্যানার্জী। সভায় বক্তব্য দেন সাংবাদিক জালাল আহমেদ, মুজাহিদুল ইসলাম প্রমুখ। এর আগে পটুয়াখালী প্রেসক্লাবের সামনে থেকে ব্যানার নিয়ে শোভাযাত্রা বের হয়। শোভাযাত্রাটি শহরের প্রধান প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ করে।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন