নিহত তরুণের নাম আবির হাসান (২২)। তিনি ময়মনসিংহ জেলার নান্দাইল উপজেলার রাজগাতি এলাকার আনোয়ারুল হকের ছেলে। তবে তাঁরা বসবাস করেন কিশোরগঞ্জ জেলা শহরের খড়মপট্টি এলাকায়। আবির কিশোরগঞ্জ গুরুদয়াল সরকারি কলেজের স্নাতক প্রথম বর্ষের শিক্ষার্থী ছিলেন।

জুবায়েরের বড় বোন আরিফা সুলতানা পুলিশকে জানান, তাঁকে বাসা থেকে বের করে দিয়ে ভেতরে আবিরের গলায় ছুরিকাঘাত করে পালিয়ে যান জুবায়ের।

অভিযুক্ত জুবায়ের হাসান জেলা শহরের গাইটাল এলাকার মো. শহীদুল্লাহর ছেলে। তিনি স্নাতক শেষ বর্ষের শিক্ষার্থী।

জুবায়েরের বড় বোন আরিফা সুলতানা পুলিশকে জানান, আবির তাঁর ছেলেকে প্রাইভেট পড়াতেন। বুধবার সন্ধ্যার দিকে আবির প্রতিদিনের মতো তাঁর ছেলেকে পড়াতে এসেছিলেন। এ সময় তাঁর ভাই জুবায়ের হঠাৎ বাসায় এসে আবিরের সঙ্গে তর্কে জড়ান। একপর্যায়ে তাঁকে (আরিফা সুলতানা) বাসা থেকে বের করে দিয়ে ভেতর থেকে দরজা বন্ধ করে দেন জুবায়ের। পরে ভেতরে আবিরের গলায় ছুরিকাঘাত করে পালিয়ে যান জুবায়ের।

কিশোরগঞ্জ মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোহাম্মদ দাউদ হত্যাকাণ্ডের বিষয়টি নিশ্চিত করে জানান, হত্যাকাণ্ডের পর অভিযুক্ত জুবায়ের পালিয়ে গেছেন। তাঁকে গ্রেপ্তারের চেষ্টা চলছে। লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য কিশোরগঞ্জ জেনারেল হাসপাতালের মর্গে পাঠানো হয়েছে। কী কারণে আবিরকে খুন করা হয়েছে, তা তাৎক্ষণিক জানা যায়নি।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন