ওই শিশুর মামা ইসমাইল হোসেন অভিযোগ করে বলেন, শিশুটির দুই হাত ভেঙে ফেলা হয়েছে। তার নাক দিয়ে রক্ত বের হচ্ছে। কেউ তাকে ধর্ষণের পর হত্যা করে এভাবে পানিতে ফেলে গেছে।

সদর থানার পরিদর্শক (তদন্ত) সাজ্জাদ হোসেন প্রথম আলোকে বলেন, খবর পেয়ে তাঁরা ঘটনাস্থলে যাওয়ার প্রস্তুতি নিচ্ছিলেন। এরই মধ্যে জানতে পারেন, নিহত শিশুর লাশ হাসপাতালে এনেছেন স্বজনেরা। পরে হাসপাতালে গিয়ে ওই শিশুর লাশ উদ্ধার করেন। লাশটি পুলিশের তত্ত্বাবধানে হাসপাতালের মর্গে রেখেছেন। আগামীকাল শনিবার সকালে লাশটির ময়নাতদন্ত করা হবে।

সাজ্জাদ হোসেন আরও বলেন, লাশের শরীরে কোনো আঘাতের চিহ্ন বোঝা যাচ্ছে না। তবে নাক ও চোখ দিয়ে রক্ত বের হচ্ছিল। বিকেলে ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছে পুলিশ।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন