মেলায় প্রধান অতিথি ছিলেন ব্রাহ্মণবাড়িয়া-৩ (সদর ও বিজয়নগর) আসনের সংসদ সদস্য ও জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি র আ ম উবায়দুল মোকতাদির চৌধুরী। অন্যদের মধ্যে আরও উপস্থিত ছিলেন অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (শিক্ষা ও আইসিটি) জিয়াউল হক মীর, ব্রাহ্মণবাড়িয়া সরকারি কলেজের অধ্যক্ষ বিভূতিভূষণ দেবনাথ, সদর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ফিরোজুর রহমান ও সদর উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) সাইফ উল আরেফীন। অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন সদর উপজেলার নির্বাহী কর্মকর্তা ইয়ামিন হোসেন।

অন্নদা সরকারি উচ্চবিদ্যালয়ের বিজ্ঞান বিভাগ থেকে এসএসসি পরীক্ষায় অংশ নেওয়া শিক্ষার্থী শ্রীকান্ত পালিত বলে, কৃষকেরা সনাতন পদ্ধতিতে চাষাবাদ করেন। যে কারণে কাঙ্ক্ষিত উৎপাদন হচ্ছে না। উৎপাদনক্ষমতা বাড়ানোর জন্য কৃষিতে ডিজিটাল প্রযুক্তির ব্যবহার বাড়ানোর জন্য তারা এ উদ্ভাবনী নিয়ে হাজির হয়েছে। বোরো ধানে পানি বেশি লাগে। সব কৃষক স্বল্প মূল্যে তাঁদের জমিতে এই প্রযুক্তি ব্যবহার করতে পারবেন। অন্নদা সরকারি উচ্চবিদ্যালয়ের দলে আরও ছিল দশম শ্রেণির শিক্ষার্থী বরকত উল্লাহ ও শাহ রিয়াদ এবং অষ্টম শ্রেণির শিক্ষার্থী সাকিব ও মো. হাসিম।

আয়োজকেরা বলেন, ডিজিটাল উদ্ভাবনী মেলায় তিনটি পর্যায়ে প্রতিযোগিতা হবে। এগুলো হলো মাধ্যমিক, উচ্চমাধ্যমিক ও উন্মুক্ত। তিনটি সেরা উদ্ভাবনীকে পুরস্কার দেওয়া হবে। তারা বিভাগীয় ও জাতীয় পর্যায়ে অংশ নেবে। এ ছাড়া মেলায় সদর ইউএনও ইয়ামিন হোসেন নিজ উদ্যোগে তাৎক্ষণিকভাবে কুইজ প্রতিযোগিতার আয়োজন করেছেন।

মেলা উদ্বোধনের পর প্রধান অতিথির বক্তব্যে সংসদ সদস্য উবায়দুল মোকতাদির চৌধুরী বলেন, ‘বিজ্ঞান না হলে পৃথিবী এগোবে কীভাবে? তাই বিজ্ঞানমনস্ক হতে হবে। বিজ্ঞান ও ডিজিটাল প্রযুক্তিকে মানবসভ্যতা ও মানুষের কল্যাণের কাজে ব্যবহার করতে হবে। তাহলে এই দেশ এগিয়ে যাবে।’